বাড়ি ব্যবসা ২০২৩ সালে স্থিতিশীল হবে কয়লার বৈশ্বিক চাহিদা

২০২৩ সালে স্থিতিশীল হবে কয়লার বৈশ্বিক চাহিদা

350
0

বিশ্বজুড়েই কয়লা এখনো বিদ্যুৎ উৎপাদনের অন্যতম প্রধান জ্বালানি। ইন্টারন্যাশনাল এনার্জি এজেন্সির (আইইএ) মতে, ২০২৩ সালের মধ্যেই পণ্যটির বৈশ্বিক চাহিদা স্থিতিশীল হয়ে আসবে। এ সময়ের মধ্যে বিদ্যুৎ উৎপাদনে নবায়নযোগ্য জ্বালানি ও প্রাকৃতিক গ্যাসের ব্যবহার বৃদ্ধির কারণে কয়লার ব্যবহারও কমে আসবে। চীনের রাজধানী বেজিংয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে আইইএ এ প্রতিবেদনটি প্রকাশ করে। প্রতিবেদনে জানানো হয়, আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে বৈশ্বিক জ্বালানি মিশ্রণে কয়লার অংশ ২৭ শতাংশ থেকে কমে ২৫ শতাংশে নেমে আসবে। আইইএ জানায়, পাঁচ বছরের মধ্যে এশিয়ার দেশগুলোয় কয়লার চাহিদা বাড়বে, বিশেষ করে অন্যতম শীর্ষ ভোক্তা ভারতে। তবে এ সময়ে চীন, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপে পণ্যটির চাহিদা কমে আসবে। এতে কয়লার বৈশ্বিক চাহিদায় স্থিতিশীলতা আসবে। আইইএর মতে, আগামী পাঁচ বছরে চীনে কয়লার চাহিদা ধারাবাহিকভাবে প্রতি বছর গড়ে ১ শতাংশের বেশি হারে কমবে। প্রসঙ্গত, বৈশ্বিক উষ্ণায়ন, জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশ দূষণের কারণে পরিবেশবাদীরা দীর্ঘদিন ধরে কয়লার ব্যবহার কমানোর জন্য চাপ দিচ্ছেন। এ কারণে জার্মানি ও ফ্রান্সসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ধীরে ধীরে কয়লার ব্যবহার কমিয়ে আনছে। তবে কিছু দেশ এর বিপরীতে হাঁটছে। এ কারণে বিশ্বজুড়েই এখনো বিদ্যুৎ উৎপাদনে প্রধান জ্বালানি হিসেবে কয়লা নিজের অবস্থান ধরে রাখতে পেরেছে। চীন একই সঙ্গে কয়লার শীর্ষ উত্তোলনকারী, আমদানিকারক ও ভোক্তা। বিশ্বের কয়লাখনির অর্ধেকই দেশটিতে অবস্থিত। তাই চীন কয়লার ব্যবহার কমিয়ে না আনলে পরিবেশ বিপর্যয় রোধ করা যাবে না বলে আশঙ্কা পরিবেশ বিশেষজ্ঞদের। এ কারণে চীন সরকারও কয়লা থেকে দূষণ কমিয়ে আনতে তত্পর হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে চীনের ন্যাশনাল এনার্জি অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের উপপ্রধান লিউ বাউহুয়া জানান, তার দেশের ৭০ শতাংশ কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্রে নিম্নমাত্রার নিঃসরণ নিশ্চিত করা হয়েছে।

Loading...