বাড়ি অন্যান্য হলুদ সর্তকতা জারি করেছে হাওয়া অফিস

হলুদ সর্তকতা জারি করেছে হাওয়া অফিস

35
0

কলকাতা, ২২ সেপ্টেম্বর : দক্ষিণবঙ্গের কিছু জেলায় বজ্রবিদ্যুৎ সহ বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় দক্ষিণবঙ্গে ভারী বৃষ্টির সর্তকতা রয়েছে বীরভূম মুর্শিদাবাদ বাঁকুড়া ও পশ্চিম মেদিনীপুরে। নিম্নচাপের অবস্থান উত্তর ওড়িশা ও উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে। সরাসরি প্রভাব না পড়লেও ওড়িশা সংলগ্ন জেলা ও পশ্চিমের জেলাগুলিতে মঙ্গলবারও বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির পূর্বাভাস।উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগরে রবিবার ফের নয়া নিম্নচাপ ঘনীভূত হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। তবে অন্ধ্র প্রদেশ উপকূলে পশ্চিম মধ্য বঙ্গোপসাগরে বর্তমানে একটি নিম্নচাপ অবস্থান করছে। তার প্রভাব সেভাবে রাজ্যে পরেনি। দিন দিন গরম বেড়েই চলেছে। ফের নয়া নিম্নচাপের প্রভাব বাংলায় পড়েছে। রবিবার থেকেই দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির দেখা মেলেছে। মঙ্গলবার পর্যন্ত বৃষ্টি বজায় থাকবে বলেই অনুমান করছে আবহাওয়াবিদরা। অন্যদিকে মঙ্গলবার পর্যন্ত গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে হলুদ সতর্কতা জারি হয়েছে।এদিন উত্তরবঙ্গে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির সর্তকতা জারি করেছে হাওয়া অফিস। অতি ভারী বৃষ্টির জন্য কমলা সর্তকতা জারি রয়েছে দার্জিলিং, কালিম্পং, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার, জলপাইগুড়ি এবং উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুরের। মালদাতেও ভারী বৃষ্টির জন্য হলুদ সর্তকতা জারি করেছে আবহাওয়া দফতর। দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি ও কোচবিহারে ২০০ মিলিমিটারের বেশি বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস।
বুধবার ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির সতর্কতা রয়েছে দার্জিলিং, কালিম্পং, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার ও জলপাইগুড়িতে। বুধবার ভারী বৃষ্টি হতে পারে মালদা ও উত্তর দক্ষিণ দিনাজপুরেও। বৃহস্পতিবার থেকে শনিবার পর্যন্ত ভারী বৃষ্টির সর্তকতা রয়েছে উত্তরবঙ্গের উপরের পাঁচ জেলায অর্থাৎ দার্জিলিং, কালিম্পং, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার ও জলপাইগুড়িতে। এছাড়াও নাগাড়ে বৃষ্টির কারণে উত্তরবঙ্গের নদী গুলিতে জলস্তর বাড়তে পারে। সেই সঙ্গে নিচু এলাকা প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কাও রয়েছে। পাশাপাশি দার্জিলিং ও কালিম্পং-এ ধ্বস নামার আশঙ্কাও রয়েছে।
অন্যদিকে বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপ থাকার কারণে প্রচুর পরিমাণ জলীয় বাষ্প ঢুকছে উত্তরবঙ্গে। উত্তরের জেলাগুলিতে তাই বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির সতর্কতা দিয়েছে আবহাওয়া দফতর। দক্ষিণবঙ্গে এদিন মূলত বৃষ্টি হবে বীরভূম, মুর্শিদাবাদ, পূর্ব মেদিনীপুর এবং সুন্দরবন এলাকায়। এইসব অঞ্চলে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ হাল্কা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হবে। প্রায় সারাদিনই বৃষ্টি হবে, তবে বিক্ষিপ্ত ভাবে। অন্যদিকে উত্তরবঙ্গের মালদা এবং উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুরেও আজ বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস। কলকাতায় এদিন আকাশ থাকবে মেঘলা। বজ্রবিদ্যুৎ-সহ দু-এক পশলা বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ অত্যধিক হওয়ায় আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তিও থাকবে। অর্থাৎ দিনেরবেলায় ভ্যাপসা-গুমোট গরমে হাঁসফাঁস করবেন সাধারণ মানুষ।
বর্তমানে নিম্নচাপ পশ্চিম দিকে সরে যাচ্ছে, ফলে পশ্চিম ওড়িশা ও রাজ্যের পশ্চিমের জেলাগুলিতে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।মৎস্যজীবীদের আগামী ২৪ ঘন্টা সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে সমুদ্র উপকূলে ৪৫ থেকে ৫৫ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বইবে। সমুদ্র উত্তাল থাকবে। উত্তরবঙ্গের নদী গুলির জলস্তর বাড়বে নিচু এলাকা প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা। দার্জিলিং কালিম্পং সহ পার্বত্য এলাকায় ধ্বস নামার আশঙ্কা।মঙ্গলবার কলকাতায় প্রধানত মেঘলা আকাশ বজ্রবিদ্যুৎ-সহ দু-এক পশলা বৃষ্টির সম্ভাবনা। জলীয় বাষ্প বেশি থাকে আদ্রতাজনিত অস্বস্তি থাকবে। আজ সকালে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৬.৯ ডিগ্রী সেলসিয়াস। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গতকাল সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩০.৮ ডিগ্রী সেলসিয়াস। বাতাসে সর্বোচ্চ জলীয়বাষ্পের পরিমাণ ৯৫ শতাংশ। গত ২৪ ঘন্টায় বৃষ্টি হয়েছে ৩.৩ মিলিমিটার।

Loading...