বাড়ি অন্যান্য সুন্দরবনে পাঁচ কোটি ম্যানগ্রোভ বসানোর প্রস্তুতি চলছে জোরকদমে

সুন্দরবনে পাঁচ কোটি ম্যানগ্রোভ বসানোর প্রস্তুতি চলছে জোরকদমে

40
0

কলকাতা, ৮ জুলাই  :  যুদ্ধকালীন প্রস্তুতিতে সুন্দরবনে পাঁচ কোটি ম্যানগ্রোভ বসাতে শুরু হয়েছে। জেলা ও ব্লক প্রশাসন এবং বন দফতরের আধিকারিকদের নিয়ে গঠিত হয়েছে উচ্চ পর্যায়ের কমিটি। তারাই গাছ লাগানোর বিষয়টি তদারক করছেন। 

গাছ লাগানোর জন্য উপযুক্ত জমি খুঁজে বের করতে সমীক্ষার কাজ শুরু হয়েছে। চলছে ম্যানগ্রোভের বীজ সংগ্রহের কাজ। এই সমস্ত কর্মযজ্ঞ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘোষণা মেনেই শুরু হয়েছে। নবান্ন সূত্রের খবর, আগামী ১৪ জুলাই রাজ্য বন মহোৎসবে সুন্দরবন এবং তার আশপাশে ম্যানগ্রোভ রোপনের কাজ শুরু হবে। 
মূলত দক্ষিণ ও উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার সুন্দরবন লাগোয়া অঞ্চলেই ম্যানগ্রোভ লাগানো হবে। মোট ১৬টি ব্লককে প্রাথমিক ভাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে গোসাবা, বাসন্তী, কুলতলি, সাগর, কাকদ্বীপ, পাথরপ্রতিমা, সন্দেশখালি, হাড়োয়া, মিনাখা, হিঙ্গলগঞ্জ এবং হাসনাবাদ ব্লক। এই কাজ যাতে মসৃণ ভাবে হয় সেজন্য আলাদা নজরদারি কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাতে বন দপ্তরের ডেপুটি ফিল্ড ডিরেক্টর পদমর্যাদার অফিসাররা ছাড়াও স্থানীয় বিডিও-দের রাখা হয়েছে। কমিটির মাথায় রয়েছেন জেলাশাসক।
বন দফতরের হিসেব অনুযায়ী, প্রতি হেক্টর জমাতে ২০ হাজার ম্যানগ্রোভ লাগানো যায়। ফলে পাঁচ কোটি ম্যানগ্রোভ লাগাতে কম করে ২৫০০ হেক্টর জমি লাগবে। সুন্দরবনের সংরক্ষিত এলাকায় এত খালি জমি পাওয়া মুশকিল। তাই সুন্দরবন বায়োস্ফিয়ার রিজার্ভের বাইরে নদীর চর, সমুদ্র তীরবর্তী এলাকা এবং পরিত্যক্ত সরকারি জমিতে ম্যানগ্রোভ লাগানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। 
নবান্নের এক শীর্ষ কর্তা জানান, তিনটি ধাপে ম্যানগ্রোভ রোপণের কাজ হবে। প্রথম ধাপ হল, ম্যানগ্রোভের জন্য উপযুক্ত জমি খুঁজে বের করা। কারণ, সব জমিতে ম্যানগ্রোভ জন্মায় না। স্থানীয় ব্লক প্রশাসন, বন ও ভূমি সংস্কার দফতর এবং গ্রাম পঞ্চায়েত যৌথ ভাবে জমির খোঁজ চালাচ্ছে। তার সঙ্গে জমির মালিকানা, বর্তমান অবস্থা এবং সেখানকার মাটির চরিত্র খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সেই জমিতে কোন ধরনের ম্যানগ্রোভ লাগানো যেতে পারে সে ব্যাপারে বিশেষজ্ঞদের কাছ থেকে পরামর্শ নেওয়া হচ্ছে।

Loading...