বাড়ি কলকাতা শহরের কনটেইনমেন্ট জোন পরিদর্শন খোদ কলকাতা পুলিশ কমিশনারের

শহরের কনটেইনমেন্ট জোন পরিদর্শন খোদ কলকাতা পুলিশ কমিশনারের

42
0

কলকাতা, ১০ জুলাই: সময়ের সাথে সাথে ক্রমাগত বাড়ছে করোনা আতঙ্ক । করোনা কাঁটায় রাজ্যজুড়ে বৃহস্পতিবার থেকে কনটেইনমেন্ট জোনগুলিকে ফের শুরু হয়েছে লকডাউন। লকডাউনের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে খোদ পথে নামলেন কলকাতা পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা। শুক্রবার শহরের কনটেইনমেন্ট জোন পরিদর্শন করলেন খোদ কলকাতা পুলিশ কমিশনার।  করোনা আতঙ্কে ঘুম ওড়ার জোগাড় শহরবাসীর। তবে করোনা সংক্রমণ এড়াতে শহরবাসীর যেন দায়িত্ব নিয়েছে কলকাতা পুলিশ। কখনও গান গেয়ে আবার কখনও সচেতনতার বার্তা দিয়ে কলকাতাবাসীকে করোনা সংক্রমণ থেকে বাঁচানোর চেষ্টা চালাচ্ছে কলকাতা পুলিশ। লকডাউন সঠিকভাবে পালন করতে বিভিন্ন জায়গায় নাকা চেকিং চালান হচ্ছে পুলিশের তরফে।আর এবার  ফের লকডাউনে শহরের অবস্থা খতিয়ে দেখতে পথে নামলেন কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা। শহরবাসীর সঙ্গে কথা বলছেন পুলিশ কমিশনার।  শহরের কনটেইনমেন্ট জোনগুলি , ২০/১এন মতিলাল বসাক লেন (ওয়ার্ড ৩১), সত্যম টাওয়ার- ৬৪এ আলিপুর রোড (ওয়ার্ড ৭৪), ৫ বি জাজেস কোর্ট (ওয়ার্ড ৭৪), ১৯এ শরৎ বোস রোড (ওয়ার্ড ৭০), ৪৯বি, ৩৬এ, ৪৪, ৮/১বি, ১২এ চক্রবেরিয়া রোড (ওয়ার্ড ৭০), পি১২ কাঁকুরগাছি সিআইটি স্কিম ৭ এম(ওয়ার্ড ৩১), ১/২ আরিফ রোড(ওয়ার্ড ১৩), অধর চন্দ্র দাস লেন সমগ্র (ওয়ার্ড ১৩), ১৩৮, পূর্বালোক (ওয়ার্ড ১০৯), ৫৫ এ ডঃ শরৎ ব্যানার্জি রোড(ওয়ার্ড ৯০), ৮/সি, ৩ এ, ৪/১ডি হরিপাল লেন(ওয়ার্ড ২৭), জহরলাল দত্ত লেন (ওয়ার্ড ১৩), ১, বেলভেডিয়ার রোড (ওয়ার্ড ৭৪), ২, বিজয় গড়(ওয়ার্ড ৯৬), ৭৬- ১৫৭ ডঃ জি এস বোস রোড(ওয়ার্ড ৬৭), ১৩৮ রাজা রামমোহন সরণী ৪৬/৫৭,৫৭,১০৪,৯৬এ,১০৬/২এ(ওয়ার্ড ৩৮), সম্মিলনী পার্ক ( মাঙ্গলিক থেকে যুবশক্তি সম্মিলনী ক্লাব পর্যন্ত। ওয়ার্ড ১০৯), ১৭, উল্টোডাঙ্গা মেইন রোড (ওয়ার্ড ১৩), ৩৪ এল ও ৬৪ সুরেন সরকার রোড (ওয়ার্ড ৩৩), তোরণ কৃষ্ণ নস্কর লেন সাথে চাউল পট্টি ক্রসিং (ওয়ার্ড ৩৩), ৮৫-১৫৮ নম্বর সুইনহো লেন (ওয়ার্ড ৬৭), বৈদ্য পাড়া হাই স্কুল থেকে ৪৬/১ ভুবন মোহন রায় রোড (ওয়ার্ড ১২৩), ৫১, প্রগতি পল্লী থেকে ২৪৫সি এম জি রোড (ওয়ার্ড ১২৪), ৩২,৬৭বি, ৫/৭ বলরাম দে স্ট্রিট (ওয়ার্ড ২৫), লিন্টন স্ট্রিট ব্লাড ব্যাংক থেকে বিদ্যাপীঠ স্কুল পর্যন্ত (ওয়ার্ড ৬০)।এই সব এলাকায় আগামী সাত দিন কড়া নজরদারি চালাবে প্রশাসন। এরপর ওই এলাকার পরবর্তী পরিস্থিতি বিবেচনা করে পদক্ষেপ নেবে রাজ্য প্রশাসন। 

Loading...