বাড়ি কলকাতা ল্যাপটপ, কমপিউটার চোরাই কারবারে ধৃত বিএসএফ জাওয়ান

ল্যাপটপ, কমপিউটার চোরাই কারবারে ধৃত বিএসএফ জাওয়ান

88
0

বারুইপুর, ২৪ অক্টোবর :  ল্যাপটপ, কম্পিউটারের চোরাই কারবারের ঘটনায় ধরা পড়ল এক বিএসএফ জাওয়ান সহ গ্রেফতার পাঁচ। ধৃতদের মধ্যে এক মহিলা ও রয়েছেন। ধৃত মহিলা সম্পর্কে ওই জাওয়ানের স্ত্রী বলে জানিয়েছে পুলিশ। বুধবার সন্ধ্যায় জয়নগর থানার কুলপি রোড এলাকা থেকে অভিযুক্তদের গ্রেফতার করে বারুইপুর পুলিশ জেলার স্পেশাল অপারেশান গ্রুপ ও জয়নগর থানার পুলিশ। ধৃতদের বৃহস্পতিবার বারুইপুর মহকুমা আদালতে তোলা হয়। পুলিশ ধৃতদের নিজেদের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে আরও তদন্ত করতে চাইছে। 
বুধবার গোপনসুত্রে খবর পেয়ে বারুইপুর জেলা পুলিশের স্পেশাল অপারেশান গ্রুপ ও জয়নগর থানার পুলিশ জয়নগর থানা এলাকার কুলপি রোডে নজরদারি শুরু করে। সেই সময় একটি সুমো গাড়িতে করে এক ব্যক্তি সস্ত্রীক মন্দিরবাজারের দিক থেকে বারুইপুরের দিকে আসছিলেন। সন্দেহ হওয়ায় সেই গাড়িটিকে আটক করে পুলিশ। গাড়িতে তল্লাশি অভিযান চালিয়ে এগারোটি ল্যাপটপ, পাঁচটি সিপিইউ ও ছয়টি মনিটার উদ্ধার করে পুলিশ। উদ্ধার হওয়া ল্যাপটপ সহ বাকী জিনিষপত্রের সঠিক কাগজপত্র দেখাতে না পারায় ওই গাড়িতে থাকা এক মহিলা সহ চারজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা যায় পেশায় বিএসএফ জাওয়ান দীপঙ্কর হাজরা এই পাচার চক্রের মূল পান্ডা। স্ত্রীকে সাথে নিয়ে মন্দিরবাজার এলাকা থেকে চোরাই ল্যাপটপ, কম্পিউটার পাচারের ব্যবসা করতো সে। মুর্শিদাবাদের বহরমপুরের বাসিন্দা হলেও বর্তমানে শ্রীনগরে কর্মরত সে। ছুটিতে বাড়িতে এসে এই চোরা কারবার করে বলে জেরায় জানতে পেরেছে পুলিশ। মুর্শিদাবাদ দিয়ে এইসব চোরাই মালপত্র বাংলাদেশে পাচার করা হতো বলে ও জেরায় জানিয়েছে দীপঙ্কর। গ্রেফতার হওয়া মহিলা রাখী মণ্ডল সম্পর্কে দীপঙ্করের স্ত্রী। ধরা পড়া বাকী দুজনের মধ্যে একজন গাড়ির চালক ও অন্যজন ওয়াসিম শেখ দীপঙ্করের বন্ধু। দীপঙ্করকে জিজ্ঞাসাবাদ করে এই ঘটনায় জড়িত আরও একজন সানোয়ার বৈদ্যকে মন্দিরবাজার থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সানোয়ারের কাছ থেকে ও ষোলটি ল্যাপটপ, পাঁচটি সিপিইউ ও ছয়টি মনিটার উদ্ধার করে পুলিশ। বিভিন্ন জায়গা থেকে সানোয়ার চোরাই জিনিষপত্র কিনে সেগুলি দীপঙ্করের কাছে বিক্রি করতো বলে পুলিশ তদন্তে জেনেছে। এই ঘটনায় আরও কে বা কারা জড়িত আছে সে বিষয়ে তদন্ত করছে পুলিশ।

Loading...