বাড়ি রাজ্য nadia লোকসভায় বেশি লিড দেবে তাকে পুরুস্কৃত করা হবে- অনুব্রত মন্ডল

লোকসভায় বেশি লিড দেবে তাকে পুরুস্কৃত করা হবে- অনুব্রত মন্ডল

373
0

। দেবাশীষ কংশবণিক, কৃষ্ণনগর। আসন্ন লোকসভার ভোটে এলাকা থেকে যে যত বেশি লিড দেবে, তাদের কে পুরস্কৃত করা হবে। বৃহস্পতিবার এই ঘোষণা করেন অনুব্রত মন্ডল।  বৃহস্পতিবার নদিয়ার কৃষ্ণনগরে ঘূর্ণি স্কুল মাঠে এক কর্মী সভা করতে এসে একথা জানান, নদিয়ার সদ্য দায়িত্বপ্রাপ্ত পর্যবেক্ষক অনুব্রত মন্ডল। এদিনের সভায় অনুব্রত মন্ডল ছাড়াও ছিলেন, জেলা তৃণমূলের সভাপতি গৌরী শংকর দত্ত, কৃষ্ণনগরের বিধায়ক তথা মন্ত্রী উজ্জ্বল বিস্বাস, কৃষ্ণনগর পৌরসভার প্রাক্তন পুরপিতা অসীম সাহা সহ অন্যান্য জেলা নেতৃবৃন্দ। এছাড়াও কৃষ্ণনগর দুটি সহ চাপড়া, নবদ্বীপ, কৃষ্ণগঞ্জ, কালীগঞ্জ ও নাকাশীপাড়া বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক এবং অন্যান্য নেতারা। এদিন অনুব্রত বাবু সাতটি বিধানসভার তৃণমূলের ব্লক সভাপতি, অঞ্চল সভাপতি এবং বুথ  সভাপতি সহ অন্যান্য নিয়ে কর্মীসভা করলেন নদীয়ার সদ্য দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা অনুব্রত মণ্ডল। তিনি মঞ্চে বসে ব্লক সভাপতি থেকে শুরু করে অঞ্চল ও বুথ সভাপতিকে বিভিন্ন সমস্যার কথা শুনলেন। তাদের মুখ থেকে সমস্যার কথা শুনে দাওয়াইও বাতলে দিলেন। শুধু দাওয়াই বাতলানোই নয়, কর্মীদের উজ্জীবিত করতে ঘোষণা করলেন, লোকসভা ভোটে যে যে এলাকা থেকে বেশি ভোটে লিড দেবে তাদের পুরস্কৃত করা হবে।উল্লেখ থাকে যে এদিন একই সময় কয়েক কিলোমিটার দূরত্বে বি জে পিরও সভা ছিল। সেখানে কেন্দ্রীয় বস্ত্র মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি প্রধান বক্তা ছিলেন। পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে অনুব্রত মণ্ডল জানান, এদিন বীরভূমে যে বোমাবাজির ঘটনার কথা বলা হচ্ছে তা সঠিক নয়। তিনি জানান,বীরভূমে কোন গন্ডগোল নেই। এটা সাংবাদিকদের মনগড়া।সেখানে কাকা এবং ভাইপোর মধ্যে একটা ছোট গন্ডগোল হয়েছে। সেটাকেই সংবাদ মাধ্যম ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে দেখাচ্ছে।  অনুব্রত বলেন,ওখানে কোনও গোষ্ঠীদ্বন্দ নেই। বি জে পির অভিযোগ তাদের সভা ভুন্ডুল করতে তৃণমূলের এই সভা। সেই প্রসঙ্গে অনুব্রত বলেন, বিজেপির নেতারা পাগল। তারা তাই পাগলের মতো অভিযোগ করছে। তিনি বলেন, আমাদের এই সভাটি অনেক আগেই ঠিক হয়েছিল। অমিত শাহ প্রসঙ্গে তার টিপ্পনি কোথায় ওদের সভাপতি। এদিনের বি জে পির সভা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ওদের সভায় লোক জন তো হয়না। শুধু মুখে বড় বড় বুলি, আর ঝুড়ি ঝুড়ি মিথ্যে কথা। তআর আরও অভিযোগ, বিজেপি বলেছিল ১৫ লক্ষ টাকা গরিবের একাউন্টে ঢুকবে। দু’কোটি করে বছরে চাকরি দেবে। কি কৈ কিছু দিতে পেরেছে। আমাদের নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে দেখে শিখুক ওরা। রাজ্যে শিক্ষা থেকে স্বাস্থ কোথায় নিয়ে গেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, গরিব মানুষের কোটি কোটি টাকা খরচ করে ঘন ঘন বিদেশ সফর করেছে মোদি। দেশের মানুষের টাকা খরচ করে বিদেশ সফর করে যে, তার আবার বড় বড় কথা। আবার সে কিনা বলে আচ্ছে দিন আয়া। অনুব্রত বলেন, আচ্ছা দিন নয়,  ভারতবর্ষে কালো দিন এসে গেছে। তিনি বলেন, আমি একটা কথা বলে দিতে চাই, বাজপেয়ির মতো লিডার দ্বিতীয় বার ফিরে আসেনি। সেখানে মোদি তো কোন ছার। অনুব্রত বলেন, আমি হলফ করে বলতে পারি দ্বিতীয় বারের জন্য ফিরবে না মোদি। তিনি বলেন,মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন লোকসভা নির্বাচনে বি জে পি একশ থেকে একশ পঁচিশ আসন পাবে। আমি বলে যাচ্ছি মিলিয়ে নেবেন ওরা আশি থেকে একশোর বেশি আসন পাবে না। হেলিকপ্টার প্রসঙ্গে  অনুব্রত মন্ডল বলেন, আমাদের দেশে হেলিকাপ্টারে চড়েন প্রধানমন্ত্রী ও  মুখ্যমন্ত্রী। বি জে পির সম্পর্কে তিনি বলেন, ওদের তো সবাই হেলিকপ্টারে চড়ে।এত পয়সা ওরা পায় কোথায়? অনুব্রত বলেন, আমরা দেখিয়ে দেবো ৩ ফেব্রুয়ারি তেহট্টর জন সভায়। সেদিন আমাদের সভায় ৩ লক্ষ মানুষ আসবেন।

Loading...