বাড়ি কলকাতা রোজভ্যালি কাণ্ডে তাপস পালকে জেরা ইডির

রোজভ্যালি কাণ্ডে তাপস পালকে জেরা ইডির

376
0

কলকাতা,৩ ডিসেম্বর: রোজ ভ্যালি কাণ্ডে ফের তৃণমূল সাংসদ তাপস পালকে তলব করল ইডি । সোমবার সকালেই সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে ইডি দফতরে পৌঁছে যান তাপস পাল । তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় ।এর আগেই আগেই রোজভ্যালি-কাণ্ডে তৃণমূল নেতা তাপস পালকে গ্রেফতার করেছিল সিবিআই । ২০১৬ সালের ৩০ ডিসেম্বর রোজভ্যালি কাণ্ডে কৃষ্ণনগরের সাংসদ তাপস পালকে গ্রেফতার করেছিল সিবিআই । প্রথমে তাপস পালকে সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে সিবিআই দপ্তরে ডেকে দীর্ঘক্ষণ জেরা করেন সিবিআইয়ের গোয়েন্দারা । সঙ্গে ছিলেন স্ত্রী নন্দিনী পাল । কিন্তু জেরায় নথির সঙ্গে বক্তব্যের অসঙ্গতি মেলায় তাপস পালকে গ্রেফতার করে সিবিআই । রোজভ্যালির থেকে একাধিকবার তাপস পাল টাকা নিয়েছিলেন বলে প্রমাণ রয়েছে বলে দাবি করে সিবিআই । বেআইনি অর্থলগ্নি সংস্থা রোজভ্যালির সঙ্গে তাপস পালের ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল এবং তিনি ওই সংস্থার কাছ থেকে বিভিন্ন সময়ে মোটা টাকা নিয়েছেন বলে অভিযোগ সিবিআইয়ের । রোজভ্যালির যে ফিল্ম ডিভিশন রয়েছে, তাপস পাল মাস ছয়েক তার অন্যতম ডিরেক্টর ছিলেন । অভিযোগ ছিল, সেই পদমর্যাদাকে কাজে লাগিয়েই, নানা সময় ওই সংস্থা থেকে টাকা তুলেছেন তিনি, এমনকী স্ত্রী ও মেয়েকে অন্যান্য সুবিধাও পাইয়ে দিয়েছেন । সংস্থার দায়িত্ব নেওয়ার আগেই তিনি বেতন নিতে শুরু করে দেন, এমন নথিও নাকি আছে সিবিআইয়ের হাতে । রোজভ্যালির পদস্থ কর্তাদের জেরা করে এবং সংস্থার বিভিন্ন দফতরে তল্লাশি চালিয়ে সেই সব নথিপত্র জোগাড় করে সিবিআই ।দীর্ঘ ১৩ মাস বন্দি থাকার পর তাঁকে জামিন দেয় ওডিশার হাইকোর্টের বিশেষ আদালত । জেল হেফাজতের পর শর্তসাপেক্ষ জামিনে ছাড়া পান তিনি । রোজভ্যালির প্রায় ১৭ হাজার কোটি টাকা আর্থিক তছরুপের তদন্তে করছে কেন্দ্রীয় সংস্থা ইডি । সেই মামলাতেই তলব করা হয় তাপস পালকে । তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ, বেআইনি অর্থলগ্নি সংস্থা রোজভ্যালির সঙ্গে তাপস পালের ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল। তিনি বিভিন্ন সময়ে মোটা টাকা নিয়েছেন সংস্থা থেকে। রোজভ্যালির ফিল্ম ডিভিশনে তাপস পাল মাস ছ’য়েক অন্যতম ডিরেক্টর ছিলেন । তাঁর পদমর্যাদাকে কাজে লাগিয়েই, নানা সময় সংস্থা থেকে সুবিধা নিয়েছেন তাপস পাল । রোজভ্যালির পদস্থ কর্তাদের জেরা করে এবং সংস্থার বিভিন্ন দফতরে তল্লাশি চালিয়ে সেই সব নথিপত্র জোগাড় করে ইডি । এর আগেও তাঁকে ডেকে পাঠিয়ে ছিল ইডি । কিন্তু তিনি সেই সময় হাজিরা দেননি । কিন্তু সোমবার সকালেই সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে পৌঁছে যান তাপস পাল ।সংস্থার কর্ণধার গৌতম কুণ্ডু এখনও জেলে । ইতিমধ্যেই তদন্তে অনেক প্রভাবশালী ব্যক্তির নাম উঠে এসেছে । রাজনৈতিক নেতাদের নাম জড়িয়েছে বিভিন্ন সময়ে । সংস্থার কর্ণধার গৌতম কুণ্ডু এবং সংস্থার বেশ কয়েক জন পদস্থ কর্মচারীকে বিভিন্ন সময়ে জেরা করে বেশ কয়েকজনের নাম উঠে আসে ।

Loading...