বাড়ি কলকাতা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জেলার প্রশাসনিক বৈঠকে জেলা প্রশাসনের

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জেলার প্রশাসনিক বৈঠকে জেলা প্রশাসনের

381
0

নিজস্ব সংবাদদাতা,বর্ধমান ০৫ডিসেম্বর ঃঃঃ কাজে ক্ষোভ প্রকাশ করায় তড়িঘড়ি বৈঠকের আয়োজন পূর্ববর্ধমানে।বুধবার বর্ধমানের বিডিএ হলে বালি নিয়ে জেলা প্রশাসনের উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক হল।বৈঠকে অবৈধ বালিখাদান,বালিপাচার, ওভারলোড নিয়ে আলোচনা হয়।বিডিও,বিএলআর ও ওসি,আইসিদের কড়া হাতে গোটা বিষয়টি দেখার নির্দেশ দেন জেলাশাসক ও জেলাপুলিশ সুপার। তবে নজরদারীর অভাব আছে স্বীকার করেন জেলাশাসক। তিনি পরিস্কার জানান সম্পূর্ণ ভাবে বেআইনী খাদান বন্ধ করা যায় নি।দামোদরে জল কমতেই মেশিন নিয়ে বালি তোলা হচ্ছে রমরমিয়ে। জামালপুর,রায়না,মাধবডিহি,খণ্ডঘোষ সর্বত্রই নদীগর্ভে জেসিবি নিয়ে বালি তোলা হচ্ছে কার্যত প্রশাসনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে। জেলার বিভিন্ন রাস্তাতেও অবাদে চলছে ওভারলোডের বালির গাড়ি।প্রশাসন নিরুত্তাপ। এদিনের বৈঠকে জেলাশাসক অনুরাগ শ্রীবাস্তব ও জেলা পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখার্জী উপস্থিত ছিলেন। ছিলেন বিভিন্ন থানার ওসি, আইসি, বিডিও এবং ভূমি দপ্তরের আধিকারিকরা। এদিন জেলা শাসক অনুরাগ শ্রীবাস্তব জানান দুটি বিষয়ে আজকে আলোচনা হয় যেমন অবৈধ বালি খাদান ও ভূমি দখল । তিনি জানান সরকারি ভাবে যেসব বালি খাদান চলছে সেইসব নজর রাখা যেতে ওভার লোডিং করে বাইরে যেন না বেরোতে পারে।অন্যদিকে অবৈধ ভাবে যারা বালি খাদান চালাচ্ছে অবিলম্বে পুলিশের হস্তান্তরে বন্ধ ও গ্রেফতার করা হোক। এবং এই মুহূর্তে থেকে জেলায় বিভিন্ন স্তরে নজর দেওয়া শুরু করেছে। কার্যতঃ নদীর তীরে জমি দখল করে যারা বসবাস ও দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত তাদের কে ভূমি দফতর এই মুহূর্তে থেকে ব্যবস্থা নেওয়া হোক।

পূর্ব বর্ধমান জেলার পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখার্জী জানান রীতিমত অভিযান শুরু হয়েছে এবং আরও নজরদারী চালাবেন । তিনি আরও বলেন চোলাই মদের যারা ব্যাবসা করছেন তাদেরকে ইতিমধ্যে বন্ধ করতে সক্ষম হয়েছেন । সব মিলিয়ে বলা যেতেই পারে পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রশাসনের এতদিনে ঘুম ভেঙ্গেছে
Loading...