বাড়ি রাজ্য nadia বিয়ে বাড়ির বাস সরিয়ে নেওয়া কে কেন্দ্র করে বচসা, দুষ্কৃতীদের গুলিতে...

বিয়ে বাড়ির বাস সরিয়ে নেওয়া কে কেন্দ্র করে বচসা, দুষ্কৃতীদের গুলিতে গুরুতর জখম পাত্রের দাদা

285
0

নিজস্ব সংবাদদাতা, নদিয়া।  বিয়ে বাড়ির বাস সরিয়ে নেওয়া কে কেন্দ্র করে  স্থানীয় দুষ্কৃতীদের সঙ্গে বচসা। জার জেরে গুলিবিদ্ধ হয়ে কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন চন্ডী চরণ বিস্বাস নামে পাত্রের দাদা।  দুষ্কৃতীদের গুলিতে আহত ওই যুবক বি এস এফের একজন  জওয়ান বলে জানা যায়। এই ঘটনায় দুষ্কৃতীদের হাতে প্রহৃত হয়েছেন আরও এক বরযাত্রী।  দুষ্কৃতিরা তিন রাউন্ড গুলি চালায় বলে অভিযোগ। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার রাতে নদিয়ার হাঁসখালী থানার ভায়না এলাকায়। ঘটনার জেরে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন  বরযাত্রী সহ বিয়ে বাড়ির লোকজন। উৎসব বাড়ি মুহূর্তে পরিণত হয় ভয়ের শ্মশানে। স্থানীয় সূত্রে জানতে পারা যায়, বুধবার নবদ্বীপ পৌরসভার ২০ নং ওয়ার্ডের কলাবাগানের বাসিন্দা চিত্ত বিশ্বাস। জানা যায়, চিত্ত বাবুর ছোট ছেলে সিআইএসএফ কর্মী চন্দন বিশ্বাসের বিয়ের অনুষ্ঠান ছিল হাঁসখালী থানার ভায়নায়। জানা গিয়েছে ওইদিন সন্ধ্যায় চন্দনবাবু নবদ্বীপের  কলাবাগানের বাড়ি থেকে বিয়ে করতে যান হাঁসখালীর ভায়নায়। তার সঙ্গে আরও আশি জন বরযাত্রী নিয়ে বাসে করে রওনা হন। জানা যায়,পাত্রী ভায়নার বাসিন্দা সুভাষ বিশ্বাসের মেয়ে অপর্ণা বিশ্বাস। বিয়ের মূল অনুষ্ঠান যথা সময়ে শেষ হওয়ার পর শুরু বাসি বিয়ের পর্ব। বাসি বিয়ে চলাকালীন পাত্র চন্দন বিশ্বাসের দাদা বিএসএফ কর্মী চন্ডীচরণ বিশ্বাস তাঁদের বরযাত্রীর বাসের চালক ও খালাসির খাবার দিতে যান। বরযাত্রীদের বাসটি বিয়ে বাড়ি থেকে একটু দূরে দাঁড়িয়ে ছিল। সেখানে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা বাসটিকে সরিয়ে নিতে বলে, স্কর্পিও গাড়িতে আসা স্থানীয় কিছু দুষ্কৃতী। বর যাত্রীদের বাসটি কে সরানো কেন্দ্র করে উভয়পক্ষের মধ্যে বচসা শুরু হয়। অভিযোগ, এরপরই জনা চারেক দুষ্কৃতী পাত্রের দাদা বি এস এফ কর্মী  চন্ডীবাবুর উপর চড়াও হয়। প্রতিবাদ করলে চন্ডী বাবু কে পিস্তলের বাঁট দিয়ে মাথায় মারে দুষ্কৃতীরা। তারপর তাঁকে লক্ষ্য করে তিন রাউন্ড গুলি চালায় বলে অভিযোগ। জানা যায়, দুষ্কৃতীরা তিন রাউন্ড গুলি  চালায়। তিনটি গুলির মধ্যে দুটি গুলি  চন্ডী বাবুর পায়ে লাগে। চন্ডী বাবু সহ কয়েকজন বর্যাত্রীর চিৎকারে স্থানীয়রা ছুটে এলে, ঘটনাস্থল থেকে চম্পট দেয় স্থানীয় দুষ্কৃতীরা। এরপর স্থানীয়রা চন্ডীবাবু কে গুরুতর জখম অবস্থায় উদ্ধার করে শক্তিনগর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে  কলকাতার  এন আরবএস মেডিক্যাল কলেজে স্থানান্তরিত করা হয়। পরিবার সূত্রে খবর, তার পায়ে লাগা দুটি গুলির মধ্যে একটি গুলি বার করা গেলেও, আরও একটি গুলি বের না হওয়ায় আজ কলকাতার একটি নার্সিংহোমে অপারেশন করা হবে। এই ঘটনার খবর পৌঁছাতেই এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। এই ঘটনায় বিয়ে এবং বৌভাতের যাবতীয় আনন্দটাই মাটি হয়ে গেছে বিশ্বাস বাড়িতে। পরিবার সূত্রে জানা যায়, আহত বিএসএফ কর্মী চন্ডী চরণ বিশ্বাস বর্তমানে ত্রিপুরায় কর্মরত। বাড়িতে স্ত্রী সহ তার তিন বছরের দুটি যমজ কন্যা সন্তান আছে। ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কাউকেই গ্রেপ্তার করতে পারেনি হাঁসখালী থানার পুলিশ। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, দুষ্কৃতীর গুলি চালানোর ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে হাঁসখালী থানার পুলিশ।

Loading...