বাড়ি রাজ্য ঝাড়গ্রাম বিঘার পর বিঘা জমির ধান, সবজি খেয়ে সাবাড় করছে দলমার দামালেরা

বিঘার পর বিঘা জমির ধান, সবজি খেয়ে সাবাড় করছে দলমার দামালেরা

109
0

ঝাড়্গ্রাম, ১৩ এপ্রিল :  দুদিন ধরে বেশ কয়েকটি গ্রামে তান্ডব চালাচ্ছে পঞ্চান্ন থেকে ষাটটি দাঁতাল। বিঘার পর বিঘা জমির ধান, সবজি খেয়ে সাবাড় করছে দলমার দামালেরা। হাতি তাড়ানোর জন্য বন দফতরকে বারে বারে বললেও বন কর্মীরা কোনও কর্ণপাত করেছে না বলে অভিযোগ বাসিন্দাদের। বন দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে হাতির দলটিতে বেশ কয়েকটি শবক রয়েছে। তাই হাতিগুলি এক জায়গা থেকে অন্য জায়গাতে মুভমেন্ট করতে চাইছে না। এছাড়া এই সময় হাতি তাড়ানোর জন্য হুলা পার্টির লোকজনেরা আসছেন না। তাই হাতি গুলিকে ড্রাইভ করানো পারছে না। তবে হাতি গুলিকে মনিটরিং করা হচ্ছে। স্থানীয় সুত্রে জানা গিয়েছে শনিবার রাতে মেদিনীপুর বন বিভাগের লালগড়ের দিক থেকে কংসাবতী নদী পেরিয়ে ঝাড়্গ্রাম জেলার বিনপুর রেঞ্জে কুশবনীর জঙ্গল লাগুয়া কপাটকাটা এলাকায় প্রবেশ করে। পরে বেনাশুলি, গোলাশুলি ও ভালুকা এলাকায় রয়েছে হাতিগুলি।বন দফতর সুত্রে জানা গিয়েছে হাতির দলেটিতে একটি সদ্য জাত রয়েছে। এদিকে হাতি দেখতে পাশাপাশি গ্রামীণ এলাকার মানুষজনেরা লক ডাউনের নিয়ম নীতিকে তোয়াক্কা করছেন না। সরকারের পক্ষ থেকে বারে মানুষজনকে সচেতন করার জন্য মাইকিং করে, লিফলেট সার্টিয়ে বোঝানো হচ্ছে অযথা বাড়ির বাইরে যাবেন না। সেখানে হাতি দেখতে কাতারে কাতারে মানুষ ভিড় জমাচ্ছেন। এদিকে রোজ বিকেলের পর জঙ্গল থেকে বেরিয়ে আসছে হাতির দল। আর তারপরেই ফসলের দফারফা করছে। স্থানীয় বাসিন্দা কল্যান মাহাত, রঞ্জিত মাহাতরা বলেন ” করলা, কুমড়া, ধান সহ অন্যান্য ফসল খেয়ে, পায়ে মাড়িয়ে একেবারে তছনছ করে দিচ্ছে দাঁতালের দল। এবিষয়ে ঝাড়্গ্রামের ডিএফও বাসব রাজ হোলচ্চি বলেন, ” বিনপুর রেঞ্জ এলাকায় পঞ্চান্ন থেকে ষাটটি হাতি রয়েছে। সেগুলিকে বন দফতরের কর্মীরা মনিটরিং করছে। হাতি গুলির মুভমেন্ট দেখা হচ্ছে কোন দিকে যাচ্ছে। তিনি বলেন সাধারন মানুষজনেরা প্রতি আমার আবেদন এই সময় সবাই ঘরে থাকুন। সুস্থ্য থাকুন। হাতির সামনে যাবেন না। হাতিদের বিরক্ত করবেন না। “

Loading...