বাড়ি বিনোদন বাংলায় বসে হিন্দি সিনেমার কাজ শেষ, পরিস্থিতি কাটলে মুক্তি পাবে “লুজার”

বাংলায় বসে হিন্দি সিনেমার কাজ শেষ, পরিস্থিতি কাটলে মুক্তি পাবে “লুজার”

46
0

বাংলায় বসে সিনেমার জগতে আবার নতুন মুখ। তাও আবার হিন্দি ছবি! এমন র্দুসাহস দেখানোর ক্ষমতা থাকা দরকার। বাংলায় দীর্ঘ দিন ধরে বাংলা সিনেমার জগতে পরিচালকরা সেই ঝুঁকি নিতে পারছেন না। নানা রকম কারণে তুলে আনতে পারছেন না নতুন মুখকে। এবার বাংলায় বসে হিন্দি সিনেমা তৈরির স্বপ্নকে বাস্তবে আঁকলেন, একদল তরুণ। তাও আবার প্রায় সকলেই নতুন মুখ! যেখানে বাংলা সিনেমা বানানোই একটা চ্যালেঞ্জ, সেখানে নতুন প্রজন্মের তরুণ তরুণীরা আসছেন নানা ক্ষেত্র থেকে সিনেমার জগতে ইতিহাস তৈরি করতে। এদের হাত ধরেই তাহলে কি এবার বাংলা সিনেমার ভাষা চলেছে বদলাতে। বাংলায় বসে হিন্দি সিনেমা বানানোর মাধ্যমে শুরু করবে হিন্দি ছবির ইতিহাসের বদল, এই তরুণ তুর্কীদের হাত ধরেই। আশায় বুক বাঁধছে আগামী! সিনেমার জগতে এই নতুন জুটিকে স্বাগত জানাতে, তৈরি বাংলার সাধারণ মানুষ। “লুজার” নামের এই স্বল্প দৈঘ্যের হিন্দি ছবির শুটিং শেষ হয়েছে, লক ডাউনের আগেই! মূলত পোস্ট প্রোডাকশে আটকে থাকার সময়েই, গোটা বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে করোনা মহামারী। ফলে এবাংলার কয়েকটি বিগ বাজেটের সিনেমার সঙ্গে, নবাগতদের টিমের এই হিন্দি ছবিটিও রয়েছে আটকে! “লুজার” নামের এই প্রেরণা মূলক ছবির চিত্রনাট্য ও পরিচালনার কাজে মন্দীপ সাহার মতো তরুণদের বলিষ্ঠতা লক্ষ্য করা যায়। তিনি আটকে থাকা জীবনের মুক্ত হওয়ার গল্পকে এঁকেছেন ছবিতে। যা আগামী প্রজন্মের কাছে, উত্তোরণের দিশা দেখাবে। ডক ডাউনের এই র্দুসময়ে হতাশাগ্রস্থ মানুষের কাছে, প্রেরণা জোগাবে এই হিন্দি ছবির শরীরি চিত্রনাট্য। ছবির ভাষা, অভিনয় দক্ষতা এবং সিন সংযোজনার ক্ষেত্রে, সিনেমা তৈরির সমস্ত নিয়ম মানা হয়েছে। এবং বিগ বাজেটের ছবি গুলোর পাশে, তরুণদের এই ছবিও ধারে ভারে কোনো অংশে কম নয়! যদিও ছবিটি প্রোডিউসার এসএমডির কর্ণধার এস কে আব্দুল লালন। তাঁর দাবি,”বৃহত্তর ভাবনাকে, কয়েকটি চরিত্রের মধ্যে তুলে ধরার চেষ্টা হয়েছে ছবিটিতে। নতুনদের সঙ্গে কাজ করে, বেশ আনন্দ পেয়েছি আমরা। আগামীতে আমাদের প্রোডাকশন হাউস আরও বড়ো বাজেটের সিনেমা করবে, তার প্রস্তুতি নিচ্ছে। আমাদের লক্ষ্য, প্রথা ভেঙে বাংলা সিনেমা জগতে আরও নতুন তরুণ তুর্কীদের এনে, আগামীকে পথ দেখানো। সেই সঙ্গে ঘটুক বাংলা সিনেমার জগতে প্রথা ভাঙ্গা গল্পের নতুন অধ্যায়।” যদিও এবিষয়ে জিজ্ঞেস করা হলে ছবির পরিচালক মন্দীপ সাহা বলেন,”আমরা সিক্স কে ক্যামেরায় গোটা ছবির শুটিং শেষ করেছি। বাংলার কলকাতা, বোলপুর ও বীরভূমের বিভিন্ন এলাকায় বেশ কয়েকটি জায়গায় ছবির শুটিং হয়েছে। মোট পাঁচ দিনে আমরা ছবির শুটিং শেষ করেছি।”ছবির নায়ক, মূল চরিত্র অয়নের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন নবাগত সঞ্জু, এবং অভিনেত্রী অর্পিতা নস্কর করেছেন নায়িকা ইরার চরিত্রে অভিনয় । এই হিন্দি ছবিটির সংগীত পরিচালক ছিলেন শুভাশিস বাবান। ছবির অন্যান্য নাম ভূমিকাতে অভিনয় করেছেন সুজিত মুখার্জি, সন্দীপ মণ্ডল, ঋতব্রত বিশ্বাস, চিত্রা মুখার্জিরা। নবাগতা এই অভিনেতার দলটির সল্প দৈঘ্যের এই হিন্দি ছবিটির নাম “লুজার”! সেই ছবির পোস্টপোডাকশনের দায়িত্ব রয়েছে অরিন্দম গায়েন।আবার করোনা পরিস্থিতি কাটলে, মানুষ হাল মুখি হলে বড়ো বাজেটের সিনেমার সঙ্গে সঙ্গে এই হিন্দি ছবিটিও মুক্তি পাবে। সেই সঙ্গে এই তরুণ দলটি তাদের আরও কয়েকটি বড়ো ছবির কাজ শুরু করবে বলে, জানালেন বোলপুরের গেস্ট হাউসে বসে। অভিনেতা সঞ্জু জানান, ” আগামী প্রেমের ছবিতে, আবার আমাদের দেখা যাবে। সেটি আরও বড়ো বাজেটের সিনেমা। তারও শুটিং শুরু হবে, একটু পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই।”

Loading...