বাড়ি রাজ্য বাঁকুড়া প্রধানমন্ত্রীর প্ররোচনায়তেই মুখ্যমন্ত্রীকে অপমান করা হয়েছে নেতাজীর জন্মদিনে ডেকে বাঁকুড়ায় এসে দলীয়...

প্রধানমন্ত্রীর প্ররোচনায়তেই মুখ্যমন্ত্রীকে অপমান করা হয়েছে নেতাজীর জন্মদিনে ডেকে বাঁকুড়ায় এসে দলীয় কর্মীদের এমনটাই শোনালেন বাঁকুড়ার পর্যবেক্ষক তথা সাংসদ কল্যান বন্দোপাধ্যায়ের

34
0

প্রধানমন্ত্রীর প্ররোচনায়তেই মুখ্যমন্ত্রীকে অপমান করা হয়েছে নেতাজীর জন্মদিনে ডেকে বাঁকুড়ায় এসে দলীয় কর্মীদের এমনটাই শোনালেন বাঁকুড়ার পর্যবেক্ষক তথা সাংসদ  কল্যান বন্দোপাধ্যায়ের। বিধানসভার পূর্বে দলকে চাঙ্গা রাখতে ইতিমধ্যেই কয়েক জায়গায় দলিয় কর্মসূচি করেছেন। সেই মতো রবিবার ছুটির দিনে বাঁকুড়ার বঙ্গবিদ্যালয় মাঠে বাঁকুড়া ও বিষ্ণুপুর জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের যুব সংগঠনের কর্মকর্তাদের নিয়ে একটি সাংগঠনিক বৈঠক করা হয়।এই সভাতে যোগ দিতে বাঁকুড়া ও বিষ্ণুপুর থেকে যুব তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীরা মিছিল করে বঙ্গবিদ্যালয় মাঠে আসেন। এদিন সভা মঞ্চে সাংসদ তার বক্তব্যা বিজেপি ও তার নেতাদের তুলোধোনা করেন। দাঙ্গাবাজ অপদার্থ দল। বাংলার সংস্কৃতি জানেনা এরা। অমিত মালব্য একজন বহিরাগত। তিনি অমিত মালব্যকে  অশিক্ষিত অপর্দাথ বলে আখ্যা দেন। অমিত মালব্য অপসংস্কৃতির ধারক। বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষেরও তীব্র সমালোচনা করেন। তিনি বলেন যারা বলছে যে রামনাম শুনলে মমতা ব্যানার্জি রেগে যাচ্ছেন কারণ তাঁর শেষ সময় চলে এসেছে। এর প্রসঙ্গে তিনি বলেন যে শেষ সময় কার এসেছে সেটি অচিরেই জানা যাবে। তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির তীব্র সমালোচনা করেন যে তাঁর উপস্থিতিতে একজন মুখ্যমন্ত্রীকে অপমান করা হল কিন্তু তিনি নীরব রইলেন। প্রসঙ্গত কল্যাণ ব্যানার্জি দাবী করেন যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির প্ররোচনাতেই শনিবার নেতাজীর জন্মদিনের অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে অপমান করা হয়। তিনি বলেন যে এর জন্য প্রধানমন্ত্রীর লজ্জা হওয়া উচিত। তিনি স্পষ্ট ভাষায় বলেন যে তাঁর বিষয়ে কে কি বলল তা নিয়ে তিনি কোনো পরোয়া করেন না। কারন তিনি বুঝে গিয়েছিলেন একজন প্রধানমন্ত্রীর দেশকে লজ্জিত করেছেন তাই মুখ খুলতে পারেননি। এদিন সাংসদ কল্যাণ ব্যানার্জি রাজ্য সরকারের খতিয়ান পেশ করে বিগত দশ বছরের কাজের রিপোর্ট কার্ড পেশ করেন। তিনি দাবি করেন যে মমতা ব্যানার্জি গত দশ বছরে যে কাজ করেছেন তা এই গোটা দেশের কোনো সরকার করতে পারে নি। মমতা ব্যানার্জির দুয়ারে সরকার কর্মসূচি এক ঐতিহাসিক কর্মসূচি যা এই ভারতে বে-নজির । তিনি বলেন যে স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের ফলে এই রাজ্যের মানুষেররা পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত চিকিৎসার সুযোগ পাবেন। রবিবারের এই সভাতে বাঁকুড়া জেলার তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি শ্যামল সাঁতরা জেলা পরিষদের মেন্টর অরূপ চক্রবর্তী বাঁকুড়া জেলা পরিষদের সভাধিপতি মৃত্যুঞ্জয় মুর্মু বাঁকুড়া বিধানসভার বিধায়িকা শম্পা দরিপা, ওন্দা বিধানসভার বিধায়ক অরুপ খাঁ রানিবাঁধ বিধানসভার বিধায়িকা জ্যোৎস্না মান্ডি বাঁকুড়া কো-অর্ডিনেটর সুব্রত দরিপা সহ জেলা তৃনমূলের একাধিক কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

Loading...