বাড়ি কলকাতা পুজোয় বাড়তি গুরুত্ব বিদ্যুৎ নিরাপত্তাকে

পুজোয় বাড়তি গুরুত্ব বিদ্যুৎ নিরাপত্তাকে

493
0

কলকাতা, ২ অক্টোবর: দুর্গাপুজোয় অবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার ক্ষেত্রে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে সুরক্ষার বিষয়টিকে। পুজোয় কেউ যাতে অবৈধভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহার না করেন, তার জন্য প্রচার বাড়ানো হচ্ছে। বেশ কিছু পুজো-প্রতিযোগিতায় গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে বিষয়টিকে। সিইএসসি-র ম্যানেজিং ডিরেক্টর অনিরুদ্ধ বসু ‘হিন্দুস্থান সমাচার’-কে জানান, গত কয়েক বছরে আমরা এই সুরক্ষা বিধি ও আইনি সংযোগের ব্যাপারে আরও সজাগ হয়েছি। পুজোর উদ্যোক্তারাও অনেক বেশি সতর্ক হয়েছেন। জানা গিয়েছে, অস্থায়ী বিদ্যুৎ সংযোগ চেয়ে ইতিমধ্যেই ২৩৪২টি পুজো আবেদন করেছে। গত বছরে ৪১৬৩টি পুজোয় অস্থায়ী বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়েছিল। এবছরে সংখ্যাটি কিছুটা বাড়বে বলেই মনে করছেন সংস্থার কর্তারা। পুজোর দিনগুলিতে যাতে কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে, তার জন্য ইলেকট্রিশিয়ানদের নিয়ে ইতিমধ্যেই দু’টি কর্মশালা করা হয়েছে। একটি হয়েছে হাওড়ায়, অন্যটি কলকাতায়। সিইএসসির এক কর্তা বলেন, পুজোয় সুষ্ঠুভাবে পরিষেবা দিতে পুরসভা, পুলিস ও দমকলের সঙ্গে সমন্বয় রেখে কাজ করা হবে। পুজোর দিনগুলিতে খোলা হবে বিশেষ কন্ট্রোল রুম। এছাড়াও লালবাজার, ভবানী ভবন এবং হাওড়া পুলিসের কন্ট্রোল রুমেও সিইএসসির অফিসাররা থাকবেন।সিইএসসি সূত্রের খবর, এবার ষষ্ঠীতে সর্বোচ্চ বিদ্যুৎ চাহিদা পৌঁছতে পারে ১৮৬০ মেগাওয়াটে। এবার পঞ্চমীতে সর্বোচ্চ বিদ্যুৎ চাহিদা হতে পারে ১৬০০ মেগাওয়াট। এবারের পুজোয় সুরক্ষাকে পাখির চোখ করেছে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিদ্যুৎ পরিবহণ নিগমও।বিদ্যুৎকর্তাদের বক্তব্য, অবৈধভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহার করলে বিপদের আশঙ্কা অনেকটাই বেড়ে যায়। পুজোর আনন্দও মাটি হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে রাজ্যের বিদ্যুৎকর্তাদের ধারণা, এবারের পুজোয় বিদ্যুৎ চাহিদা সবচেয়ে বেশি থাকতে পারে ষষ্ঠীতে। ওই দিন রাজ্যে সর্বোচ্চ বিদ্যুৎ চাহিদা পৌঁছতে পারে ৮৮৫০ মেগাওয়াটে। তার মধ্যে রাজ্য বিদ্যুৎ বণ্টন কোম্পানি এলাকায় সর্বোচ্চ চাহিদা পৌঁছতে পারে ৬৬৬০ মেগাওয়াটে।পুজোর জন্য বিশেষ কন্ট্রোল রুম খোলা থেকে শুরু করে কোনও অঘটন ঘটলে যাতে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া যায়, তার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা রাখছে বলে

Loading...

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here