বাড়ি রাজ্য দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অবশেষে বাঁশের সাঁকো বদলে আছে এবার কংক্রিটের সেতু

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অবশেষে বাঁশের সাঁকো বদলে আছে এবার কংক্রিটের সেতু

54
0

ইসলামপুর , ১৬ মার্চ ।দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর  অবশেষে বাঁশের সাঁকো বদলে আছে এবার কংক্রিটের সেতুতে।  কয়েক দশক ধরে যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম ছিল ওই বাঁশের নড়বড়ে সাঁকো। তা দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বিশেষ করে বর্ষার মুহূর্তে চলাচল করতে হতো একাধিক গ্রামের বাসিন্দাদের। এবার সেখানে গড়ে উঠতে চলেছে স্থায়ী সেতু। ইসলামপুর ব্লকের গোবিন্দপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের লালবাজারের ধরধরা এলাকায় এই সেতুর শিলান্যাস করেন ইসলামপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান কানাইলাল আগরওয়াল। তিনি বলেন, এই সেতুটি তৈরির কাজ শেষ হলে এলাকার মানুষজনের যাতায়াতের ক্ষেত্রে অনেকটাই স্বস্তি ফিরবে। ওই এলাকায় একটি স্থায়ী সেতু নির্মাণের দাবি উঠে এসেছিল এলাকার বাসিন্দাদের তরফে। সাধারণ মানুষের কথা শুনে এবং দেখে অবশেষে সেখানটায় স্থায়ী সেতু তৈরির প্রস্তাব পাঠানো হয় উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে। সেখান থেকে বিষয়টি অনুমোদন হয়ে আসে এবং আর্থিকভাবে বরাদ্দ হয়। আগামীকাল থেকেই জোরকদমে এই সেতুটির কাজ শুরু হয়ে যাওয়ার কথা  বলেন তিনি।তিনি আরও জানান, শুধু  সেতুর জন্য পি বি জি ফান্ড থেকে বরাদ্দ হয়েছে পনেরো লক্ষ ছাব্বিশ হাজার তিনশ চৌত্রিশ টাকা। এর আগেও সম্প্রতি রিংকুয়াতে একটি নতুন রাস্তার উদ্বোধন করেন তিনি। এই সেতুটি তৈরি ফলে স্থানীয় বাসিন্দাদের পাশাপাশি বিদ্যালয়ের পড়ুয়াদের চলাচলের ক্ষেত্রে অনেক সুবিধা হবে বলে জানান কানাইলাল আগারওয়াল।  উল্লেখ্য,  এর আগেও  বর্ষার মুহূর্তে চলাচলের সময়  ওই বাঁশের সাঁকো ভেঙে গিয়েছিল  একাধিকবার।  সে সময়  চরম দূর্ভোগে পড়তে হয় স্থানীয় বাসিন্দাদের। বেশ কয়েকটি গ্রামের মধ্যে যোগাযোগের একমাত্র সাঁকোটি ভেঙে যাওয়ায় সেখানে স্থায়ী সেতু তৈরির জোরালো দাবি ওঠে। অবশেষে শুরু হয় রীতিমতো আনন্দিত এলাকার বাসিন্দারা। এদিন সেখানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সমাজকর্মী জাকির হোসেন এবং নুর উদ্দিন সহ অন্যান্য বিশিষ্টজনেরা।

Loading...