বাড়ি প্রথম পৃষ্ঠা দিল্লির নির্বাচন রাজধানী ও দেশের ভবিষ্যত নির্ধারণ করবে : মোদী

দিল্লির নির্বাচন রাজধানী ও দেশের ভবিষ্যত নির্ধারণ করবে : মোদী

123
0

নয়াদিল্লি, ৩ ফেব্রুয়ারি : দিল্লির বিধানসভা নির্বাচন কেবল রাজধানী নয়, একবিংশ শতাব্দীর ভারতের ভবিষ্যত নির্ধারণ করতে চলেছে। সোমবার দিল্লির শাহদারা এলাকায় নির্বাচনী জনসভায় একথা বলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী |
নির্বাচনের ঘোষণার পর দিল্লিতে প্রথম জনসভা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী । সোমবার দিল্লির শাহদারা এলাকার করকরদুমার সিবিডি ময়দানে বিজেপির বিজয় সঙ্কল্প সমাবেশে ভাষণ দেওয়ার সময় তিনি বলেন, এই নির্বাচন কেবল সরকার গঠনের জন্য নয়, দিল্লির উন্নয়নকে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যাওয়া জন্য হবে এই নির্বাচন । এই নির্বাচন দিল্লির একবিংশ শতাব্দীর পরিচয় এবং অহংকারে অভিমানকে সমাধান করার জন্য।  তিনি আরও বলেন, দিল্লির মানুষের মনে কি আছে তা বলার দরকার নেই। এটি এখানে উপস্থিত জনতা থেকে পরিষ্কার। লোকসভা নির্বাচনে দিল্লির প্রতিটি ভোট বিজেপির শক্তি বাড়িয়েছিল এবং সাতটি আসন জিতে জানিয়ে দিয়েছিল তাঁরা কি ভাবছেন। দিল্লির ভোট দেশ পরিবর্তন করতে অনেক সাহায্য করেছে এবং তাদের ভোট দিল্লিরও অনেক পরিবর্তন করবে এবং দিল্লিকে আরও নিরাপদ ও আধুনিক করে তুলবে। দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির প্রধান মুখ নরেন্দ্র মোদী৷ মঙ্গলবার দক্ষিণ-পশ্চিম দিল্লির দ্বারকা এলাকায় আরও একটি প্রচারে যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী ৷ প্রধানমন্ত্রীর ভোটের জন্য সাধারণ মানুষের কাছে আবেদন দলের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ ৷ তাঁর আবেদনের পর দোটানায় রয়েছে এমন ভোটারদের কাছ থেকে ভোট আসবে বলেই মনে করছেন দলীয় কর্মীরা ৷৮ ফেব্রুয়ারির বিধানসভা নির্বাচন নিয়ে দিল্লির উত্তেজনা তুঙ্গে। মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের দল একদিকে যেমন সত্বা ছাড়তে নারাজ। অন্যদিকে তেমন দিল্লিতে ঘাঁটি গাড়তে প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে গেরুয়া শিবির। বিধানসভা নির্বাচনের জন্য এতদিন প্রচারে দেখা গিয়েছে বিজেপির বৃহত্তর নেতাদের। কখনও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ তো কখনও উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ গিয়েছেন জনগণের কাছে ভোট চাইতে। দুই দলই একে অপরের নানান খামতির কথা তুলে ধরেছেন।এবার শেষলগ্নে মাঠে নামলেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এদিন করকরডুমার সিবিডি ময়দান থেকে পদযাত্রা শুরু করেন নরেন্দ্র মোদী। এই জনসভায় উপস্থিত হয়েছেন বিজেপির একাধিক নেতা-মন্ত্রী ও সমর্থকেরা। এখন অপেক্ষা শুধু ৮ ফেব্রুয়ারির।

Loading...