বাড়ি দেশ দিল্লিতে সম্মুখ-সমরে আপ-বিজেপি, এগারোটা পর্যন্ত ভোট পড়েছে ৬.৯৬ শতাংশ

দিল্লিতে সম্মুখ-সমরে আপ-বিজেপি, এগারোটা পর্যন্ত ভোট পড়েছে ৬.৯৬ শতাংশ

61
0

নয়াদিল্লি, ৮ ফেব্রুয়ারি : দিল্লি ফের কার দখলে, আম আদমি পার্টি (আপ) নাকি ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)| নাকি কংগ্রেসের দখলে যাবে রাজধানী| ফলাফল জানা যাবে আগামী ১১ ফেব্রুয়ারি| তার আগে দিল্লি কার দফলে, তা নির্ধারণ করতে শনিবার সকাল আটটা থেকে রাজধানীতে শুরু হয়েছে বিধানসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ| শনিবার সকাল আটটা থেকে দিল্লির ৭০ টি বিধানসভা আসনে শুরু হয়েছে ভোটগ্রহণ| দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে এবার ত্রিমুখী লড়াই| তবে, লড়াই মূলত আম আদমি পার্টি এবং ভারতীয় জনতা পার্টির মধ্যেই| নির্বাচন কমিশন সূত্রের খবর, দিল্লিতে মোট ভোটারের সংখ্যা ১,৪৬,৯২,১৩৬ জন| দিল্লিতে শেষ বিধানসভা নির্বাচন হয়েছিল ২০১৫ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি| সেবার ৭০টি আসনের মধ্যে আম আদমি পার্টি জিতেছিল ৬৭টি আসনে| বাকি তিনটি পেয়েছিল বিজেপি| কংগ্রেস কোনও আসনে জেতেনি| এগারোটা পর্যন্ত ভোট পড়েছে ৬.৯৬ শতাংশ|

তারকা-ভোটার : ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ার প্রথম তিন ঘন্টার মধ্যেই নিজেদের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করেছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ ও তাঁর স্ত্রী সবিতা কোবিন্দ| রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ এবং তাঁর স্ত্রী সবিতা কোবিন্দ ভোট দিয়েছেন ড: রাজেন্দ্র প্রসাদ কেন্দ্রীয় বিদ্যালয়ের পোলিং বুথে| প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং এবং তাঁর স্ত্রী গুরশরণ সিং ভোট দিয়েছেন নিউ দিল্লি বিধানসভা আসনের অন্তর্গত নির্মাণ ভবনের পোলিং বুথে| কংগ্রেসের অন্তর্বর্তী সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীও নির্মাণ ভবনের পোলিং বুথে ভোট দিয়েছেন| সকাল সকাল ভোট দিয়েছেন রাহুল গান্ধী এবং প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বঢরাও| ঔরঙ্গজেব লেনের পোলিং বুথে ভোট দিয়েছেন প্রবীণ বিজেপি নেতা লালকৃষ্ণ আডবাণী এবং তাঁর মেয়ে প্রতিভা আডবাণী|

এদিন সকালেই ভোট দিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন ও তাঁর মা, কেন্দ্রীয় বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর, দিল্লির লেফটেন্যান্ট গভর্নর অনিল বাইজল এবং তাঁর স্ত্রী, সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি আর ভানুমতি, বিজেপি সাংসদ পরবেশ বর্মা, বিজেপি নেতা রাম মাধব প্রমুখ| মা’কে সঙ্গে নয়ে কৃষ্ণা নগরের রতন দেবী পাবলিক স্কুলে ভোট দয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন| এই আসনে বিজেপি প্রার্থী হলেন অনিল গোয়েল, আপ প্রার্থী হলেন এস কে বাগ্গা এবং কংগ্রেস প্রার্থী সৌরভ ভরদ্বাজ| কেন্দ্রীয় বদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর ভোট দিয়েছেন তুঘলক ক্রিসেন্টের এনডিএমসি স্কুল অফ সায়েন্স অ্যান্ড হিউমানটিজ এডুকেশনের বুথে| ভোট দেওয়ার পর বিদেশমন্ত্রী জানিয়েছেন, ‘ভোট দেওয়া প্রতিটি নাগরিকের মৌলিক কর্তব্য|’ এনডিএমসি স্কুল অফ সায়েন্স অ্যান্ড হিউমানটিজ এডুকেশনের ৱুথেই ভোট দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি আর ভানুমতি| দিল্লির লেফটেন্যান্ট গভর্নর অনিল বাইজল এবং তাঁর স্ত্রী ভোট দিয়েছেন গ্রেটার কৈলাশের একটি বুথে| মাতিয়ালা বিধানসভা আসনের অন্তর্গত একট বুথে ভোট দিয়েছেন বিজেপি সাংসদ পরবেশ বর্মা| ওখলার শাহনবাগেও সকাল থেকেই ভোটারদের লম্বা লাইন দেখা গিয়েছে|

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী তথা আম আদমি পার্টির সুপ্রিমো (নয়াদিল্লি বিধানসভা আসনের আপ প্রার্থী) অরবিন্দ কেজরিওয়াল ভোট দিয়েছেন সিভিল লাইন্সের একটি পোলিং বুথে| কেজরিওয়ালের সঙ্গেই তাঁর স্ত্রী, ছেলে এবং মেয়ে ভোট দিয়েছেন| নয়াদিল্লি বিধানসভা আসনে কেজরিওয়ালের প্রতিদ্বন্দ্বি হলেন বিজেপির সুনীল যাদব এবং কংগ্রেসের রমেশ সভরওয়াল| দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী তথা প্রতাপগঞ্জ বিধানসভা আসনের আপ প্রার্থী মণীশ সিসোদিয়া এবং তাঁর স্ত্রী সীমা সিসোদিয়া ভোট দিয়েছেন পাণ্ডব নগরের এমসিডি স্কুলের পোলিং বুথে| এছাড়াও নয়াদিল্লি বিধানসভা আসনের অন্তর্গত নির্মাণ ভবনের পোলিং বুথে ভোট দিয়েছেন প্রাক্তন উপ-রাষ্ট্রপতি হামিদ আনসারি এবং প্রবীণ আরএসএস নেতা রাম লাল| চাঁদনি চক বিধানসভা আসনের কংগ্রেস প্রার্থী অলকা লম্বা ভোট দিয়েছেন টেগোর গার্ডেন এক্সটিনশনের ১৬১ নম্বর পোলিং বুথে| অলকা লম্বার বিরুদ্ধে চাঁদনি চক আসনের প্রতিদ্বন্দ্বিরা হলেন আপ-এর প্রহ্লাদ সিং সাহনি এবং বিজেপির সুমন গুপ্তা| সকাল সকাল ভোট দিয়েছেন বিজেপি সাংসদ মীনাক্ষী লেখি|

দিল্লির সর্বত্রই শান্তিপূর্ণভাবেই ভোটগ্রহণ চললেও, মঞ্জু কা টিলার কাছে বিবাদে জড়িয়ে পড়েন আপ এবং কংগ্রেস কর্মীরা| অভিযোগ, আম আদমি পার্টির একজন কর্মীকে চড় মারার চেষ্টা করেন অলকা লাম্বা| এরপরই গণ্ডগোল শুরু হয়| আপ নেতা সঞ্জয় সিং জানিয়েছেন, এই ঘটনায় নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ জানানো হবে| এছাড়াও ইভিএম-ও বিভ্রাট দেখা দেয়| নিউদিল্লি বিধানসভার অন্তর্গত সর্দার প্যাটেল বিদ্যালয়ের ১১৪ নম্বর বুথে ইভিএম বিভ্রাট দেখা দেয়| ইভিএম-এ বিভ্রাটের কারণে সকাল আটটা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়নি যমুনা বিহারের সি ১০ ব্লকের বুথে| ভোটগ্রহণ চলাকালীনই দুঃসংবাদ| উত্তর-পূর্ব দিল্লির বদরপুর প্রাইমারি স্কুলে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন অধম সিং নামে একজন নির্বাচনী অফিসার|

Loading...