বাড়ি ব্যবসা খড় পুড়িয়ে ফেলার কারণে ২ লক্ষ কোটি টাকা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে দেশ

খড় পুড়িয়ে ফেলার কারণে ২ লক্ষ কোটি টাকা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে দেশ

397
0

উত্তর ভারতে ফসল কাটার পর মাঠে থাকা খড় পুড়িয়ে ফেলার কারণে সৃষ্ট বায়ুদূষণ প্রবল আকার ধারণ করেছে। বায়ুদূষণের কারণে ওই অঞ্চলে শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ বেড়ে গেছে। একই সঙ্গে বায়ুদূষণের ফলে ভারত স্থানীয়ভাবে প্রতি বছর আনুমানিক ৩ হাজার কোটি ডলারের আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে। গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল ফুড পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (আইএফপিআরআই) ভারতের স্থানীয় একটি সহযোগী প্রতিষ্ঠানকে সঙ্গে নিয়ে গবেষণায় দেখিয়েছে, উত্তরের প্রদেশগুলোয় খড় পোড়ানোর ফলে সৃষ্ট বায়ুদূষণে কীভাবে শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। বিশেষ করে পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুদের জন্য এটি বড় ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। গবেষণায় প্রথমবারের মতো উত্তর ভারতে খড় পোড়ানোর ফলে স্বাস্থ্য ও অর্থনৈতিক ক্ষতির পরিমাণের বিষয়ে পূর্বানুমান করা হয়েছে। গবেষণা অনুযায়ী, খড় পোড়ানোর ফলে ভারতের বার্ষিক ৩ হাজার কোটি ডলারের বেশি অর্থনৈতিক ক্ষতি হচ্ছে। ইন্টারন্যাশনাল ফুড পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের ফেলো ও প্রকাশিত গবেষণার সহকারী গবেষক স্যামুয়েল স্কট এক বিবৃতিতে বলেন, বাতাসের দুর্বল মানকে বিশ্বব্যাপী গণস্বাস্থ্যের জন্য মহামারী হিসেবে গণ্য করা হয়। সম্প্রতি দিল্লির দূষিত বাতাসে যেসব উপাদান পাওয়া গেছে তা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্ধারিত নিরাপদ সীমার চেয়েও ২০ গুণ বেশি ক্ষতিকর। তিনি আরো বলেন, অন্যান্য কারণের সঙ্গে সঙ্গে হরিয়ানা ও পাঞ্জাবের কৃষকদের খড় পোড়ানোর ঘটনাও দিল্লির বাতাসের বাজে মানের ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখছে। ফলে এ তিন প্রদেশের মানুষের মধ্যে শ্বাসযন্ত্র সংক্রমণের ঘটনা ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। খড় পোড়ানোর ক্ষতি থেকে স্বাস্থ্য সমস্যার পাশাপাশি গবেষণায় আর্থিক ক্ষতির পরিমাণের কথাও উল্লেখ করা হয়েছে। এখানে বলা হয়েছে, খড় পোড়ানোর কারণে উত্তর ভারতের পাঞ্জাব, হরিয়ানা ও দিল্লি রাজ্য বার্ষিক ৩ হাজার কোটি ডলার বা প্রায় ২ লাখ কোটি টাকা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। ভারতের গ্রাম ও শহরাঞ্চলের প্রায় ২ লাখ ৫০ হাজারের বেশি মানুষের স্বাস্থ্যসম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য বিশ্লেষণ করে এ গবেষণা প্রস্তুত করা হয়েছে। যেটা অচিরেই আন্তর্জাতিক জার্নাল এপিডেমিওলজিতে প্রকাশ করা হবে। গবেষণায় নাসার স্যাটেলাইট থেকে খড় পোড়ানোর বিভিন্ন ছবি নিয়ে স্বাস্থ্যঝুঁকি বিশ্লেষণ করা হয়েছে। যেসব এলকায় খড় পোড়ানো হয় এবং যেসব এলাকায় হয় না, সেসব জায়গার তথ্য নিয়ে এ গবেষণায় তুলনামূলক বিশ্লেষণ করা হয়েছে। গবেষকরা পর্যবেক্ষণ করে দেখেছেন, উত্তর ভারতের হরিয়ানা প্রদেশে ক্রমেই ফসলের জমির খড় পোড়ানোর ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে সেখানে শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ মারাত্মক আকার ধারণ করছে। ওই এলাকায় হাসপাতালের নথি থেকে শ্বাসযন্ত্রের প্রদাহের তথ্য নিয়ে তা গবেষণায় লিপিবদ্ধ করা হয়েছে বলে জানানো হয়েছে। এছাড়া শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণের অন্যান্য কারণ নিয়েও পরীক্ষা চালিয়েছেন গবেষকরা। এক্ষেত্রে তারা অন্য কারণ হিসেবে দীপাবলি উৎসবের সময় অধিক বাজি ফোটানো এবং অধিক হারে মোটরযানের সংখ্যা বৃদ্ধিকে দায়ী করেছেন। গবেষণায় তারা দেখিয়েছেন, বাজি ফোটানোর কারণে সৃষ্ট বায়ুদূষণে ভারতের বার্ষিক আনুমানিক ৭০০ কোটি ডলার বা ৫০ হাজার কোটি টাকা আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে। আর খড় পোড়ানো এবং এই বাজি ফোটানোর কারণে পাঁচ বছরে আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ আনুমানিক ১৯ হাজার কোটি ডলার, যা ভারতীয় জিডিপির প্রায় ১ দশমিক ৭ শতাংশ।

Loading...