বাড়ি কলকাতা কালীপুজোয় অনন্য ঐতিহ্যের মধ্যমগ্রাম

কালীপুজোয় অনন্য ঐতিহ্যের মধ্যমগ্রাম

159
0

 
কলকাতা, ২৬ অক্টোবর : কালীপুজোয় বরাবরই গোটা রাজ্যের মধ্যে বিশেষ স্থান অধিকার করেছে উত্তর ২৪ পরগণা। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য মধ্যমগ্রাম। প্রায় ১৬২ বছর আগে সংলগ্ন বিস্তীর্ণ অঞ্চলের সঙ্গে মীরজাফরের দেওয়া উপহার হিসাবে মধ্যমগ্রাম এসেছিল ব্রিটিশের ঝুলিতে। অবিভক্ত বাংলায় রাজা প্রতাপদিত্যের অধীনে ছিল ১২টি প্রদেশ। অধুনা যশোর পর্যন্ত বিস্তৃত ওই রাজত্বের অধীন ছিল মধ্যমগ্রাম। ১৭৫৭ সালের ২০ ডিসেম্বর নবাব মীরজাফর ২৪টি পরগণা উপঢৌকন দেন ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানিকে। অনেক ইতিহাসের সাক্ষী এই মধ্যমগ্রাম যে কালীপুজোর জন্য বিখ্যাত, তা প্রায় কারও অজানা নয়। দূর দূরান্তের আগ্রহীরা এই অঞ্চলে আসেন প্রতিমা দেখতে। মধ্যমগ্রাম মাইকেল নগর নেতাজী সংঘের ৭২ তম বর্ষে নেপালের তিনশ বছরের পুরনো মন্দিরের আদলে মন্ডপ তৈরি করেছেন কাঁথির শিল্পীরা। প্লাই, কাঠ, সুজি ও অন্যান্য সরঞ্জাম দিয়ে তৈরি হয়েছে প্রতিমা। প্রতিমার দুপাশে থাকবে শ্রীরামকৃষ্ণ এবং মা সারদা। চন্দননগরের আলোয় চন্দ্রযান ও নানা রকম ডিজিটাল আলোর খেলা দেখা যাবে। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান থাকছে। ওল্ড যশোহর গঙ্গানগর পোস্ট অফিসের পাশে যুব সংঘের পুজো এবার ৫৪ তম বর্ষে। সেখানে থাকছে ক্যান্সারের বিরুদ্ধে মানসিক লড়াইয়ের বার্তা এবং প্রতিমা। সেই ভাবনাযই দেখা যাবে এখানে। মন্ডপ ও প্রতিমা তৈরি করেছেন অজিত পাল। মহাজাতি ইয়ং স্টাফ বিরাটি মহাজাতি নগর প্রাঙ্গনে করছে ৫৭ তম বর্ষের শক্তির আরাধনা। ওঁদের শ্লোগান চমক নয়, সাবেকিয়ানাই ঐতিহ্য। থার্মোকলের কারুকার্যে সুসজ্জিত মণ্ডপে শ্যামা কালীর আরাধনা করা হবে। মধ্যমগ্রামের বসুনগর যুবকবৃন্দ অ্যাথলেটিক ক্লাবের ৫৩- তম বর্ষের নিবেদন সবুজায়ন। রথ, প্রকৃতি ও আদি বন্যপ্রাণীর আদলে মণ্ডপ। প্রতিমার পাশে থাকবেন শ্রীরামকৃষ্ণ এবং মা সারদা। মেঘদূত শক্তি সঙ্ঘ ৪৮-তম বর্ষে আকর্ষণ, ‘ওপারের সাজে এবারের পুজো’। বাংলাদেশের বৈশাখী মেলার অনুকরণে মন্ডপ তৈরি করেছেন রতন শীল। প্রতিমা সাবেক।

Loading...