বাড়ি কলকাতা করোনা আতঙ্কে বন্ধ হতে চলেছে খবরের কাগজও

করোনা আতঙ্কে বন্ধ হতে চলেছে খবরের কাগজও

150
0

কলকাতা, ২৪ মার্চ :  খবরের কাগজ থেকে সংক্রমণ হতে পারে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই আশঙ্কায় মহানগরীর বিভিন্ন অঞ্চলে কাগজ বন্ধ হওয়ার মুখে। 

মিলেনিয়াম পোস্টের দিল্লিবাসী প্রধান সম্পাদক দূর্বার গাঙ্গুলির মতে, “নিউজপ্রিন্টের বান্ডিল বা মোড়ক হয় নিরাপদভাবে। মুদ্রনপদ্ধতি স্বয়ংক্রিয়। হাতের ছোঁয়া এখন প্রয়োজন হয় না। সংবাদপত্র বন্টনেও স্বাস্থ্যবিধি পালিত হচ্ছে।“ এই মত সমর্থন করে একটি বাংলা সংবাদপত্রের বরিষ্ঠ সাংবাদিক কৃষ্ণকুমার দাস জানিয়েছেন, “খবরের কাগজ থেকে করোনা সংক্রমন ছড়ায় না । তবু আমার বাড়ি আসেনি, অন্যদেরও কোনও সংবাদপত্র আসেনি। সময় কাটবে কিভাবে ? পরিস্থিতি জানবে কিভাবে ?“
সোনারপুরে থাকেন একটি বাংলা দৈনিকের সাংবাদিক সৌগত মণ্ডল। তিনি জানিয়েছেন, “আমার এলাকায় আজ বাড়িতে এলো না কোন নিউজ পেপার।“ বিভিন্ন অঞ্চলের বাসিন্দা এদিন খবরের কাগজ না পাওয়ার কথা ফেসবুকে জানিয়েছেন। 
একটি সংবাদপত্রের বরিষ্ঠ সাংবাদিক পুলকেশ ঘোষ ফেসবুকে ভিডিওতে কীভাবে সংবাদপত্র মুদ্রণ সচ্ছে, তার ভিডিও পেশ করে লিখেছেন, “করোনা আতঙ্কে কাঁপছে গোটা দেশ। এর মধ্যে সবাই নিজেকে বাঁচাতেই ব্যস্ত। আমরাও ব্যস্ত। শুধু ঘরবন্দি পাঠকদের জন্য খবর আনাই নয়, জীবাণুহীন কাগজ তাঁদের কাছে পৌঁছানোর জন্য আমরা অক্লান্ত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।“
সাংবাদিক-চলচ্চিত্র পরিচালক সুব্রত সেন লিখেছেন, “খবরের কাগজ বন্ধ। কী অবস্থা!“ ট্রেন বন্ধ থাকায় রবিবার বিভিন্ন অঞ্চলের হকাররা প্রভাতী দৈনিক বিলি করতে পারেননি। বারুইপুরের উৎপল দত্ত আজ জানান, “রবিবার থেকেই আসছে না।”
স্বস্তিকা পত্রিকার সম্পাদক রন্তিদেব সেনগুপ্ত জানিয়েছেন, সাম্প্রতিক অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে স্বস্তিকা পত্রিকার ৩০ মার্চ এবং ৬ এপ্রিল সংখ্যা দুটির প্রকাশনা আমরা স্থগিত রাখতে বাধ্য হচ্ছি। স্বস্তিকার পরবর্তী সংখ্যা প্রকাশিত হবে ১৩ এপ্রিল। আমাদের এই পরিস্থিতিজনিত অপারগতা বিবেচনা করে পাঠকরা আমাদের ক্ষমা করবেন।

Loading...