বাড়ি দেশ আজও অসমের ২৬টি জেলা বন্যার কবলে, মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে ৯২, প্রভাবিত প্রায়...

আজও অসমের ২৬টি জেলা বন্যার কবলে, মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে ৯২, প্রভাবিত প্রায় ৩৬ লক্ষ মানুষ

49
0

গুয়াহাটি, ১৫ জুলাই  : সংখ্যার দিক থেকে একটি জেলা কমলেও অসমের বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় অসমে বন্যার কবলে পড়ে আরও সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। এনিয়ে এবারের বন্যায় রাজ্যে মৃত্যুর সংখ্যা দাড়িয়েছে ৯২-এ। উজান থেকে শুরু করে মধ্য এবং নিম্ন অসমের ২৬টি জেলার বন্যা পরিস্থিতি ভয়ংকর রূপ ধারণ করেছে। ওই জেলাগুলির আরও সাতটি রাজস্ব চক্র এলাকা বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। সব মিলিয়ে আজ মোট ৯৩টি রাজস্বচক্রের ৩,৩৭৬টি গ্রামের ৩৫,৭৩,৫৬৪ জন বন্যায় প্রভাবিত হয়েছেন। প্রথম, দ্বিতীয়ের পর এবারের তৃতীয় দফার বন্যা কবলিত জেলাগুলির মোট ১,২৭,৬৪৭.২৫ হেক্টর কৃষিজমি জলে প্লাবিত হয়েছে বলে সরকারি তথ্যে জানা গেছে। 
আসাম রাজ্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ (এএসডিএমএ)-এর সর্বশেষ বুলেটিনে জানানো হয়েছে, গতকাল মঙ্গলবার ডিব্ৰুগড় জেলায় তিনজন, তিনসুকিয়া ও বরপেটা জেলায় দুজন করে এবং বিশ্বনাথ ও গোলাঘাট জেলায় একজন করে মোট নয়জনের মৃত্যু হয়েছে। আজ আরও সাতজন প্ৰাণ হারিয়েছেন বন্যার জলে পড়ে। তাঁদের মধ্যে শোণিতপুর জেলার অন্তর্গত নদুয়ারের এক, বরপেটা জেলার সত্রেবাড়ির দুই, গোলাঘাট জেলার বোকাখাতে এক এবং মরিগাঁও জেলার মায়ঙে দুই ও ভুরাগাঁওয়ে একজন রয়েছেন। 
এএসডিএমএ-এর বুলেটিনে জানানো হয়েছে, আজ কেবলমাত্র ওদালগুড়ি জেলার বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হলেও প্রলয়ঙ্করী বন্যার কবলে রয়েছে রাজ্যের ২৬টি জেলা। এগুলি ধেমাজি, লখিমপুর, বিশ্বনাথ, শোণিতপুর, দরং, বাকসা, নলবাড়ি, বরপেটা, চিরাং, বঙাইগাঁও, কোকরাঝাড়, ধুবড়ি, দক্ষিণ শালমারা-মানচাকর, গোয়ালপাড়া, কামরূপ (গ্রামীণ), কামরূপ মেট্রো, মরিগাঁও, নগাঁও, হোজাই, পশ্চিম কারবি আংলং, গোলাঘাট, যোরহাট, মাজুলি, শিবসাগর, ডিব্রুগড়, তিনসুকিয়া এবং কারবি আংলং জেলা। 
ইতিমধ্যে বন্যা কবলিত জেলায় ত্রাণশিবিরের সংখ্যা বাড়িয়ে করা হয়েছে ৬২৯টি। ওই শিবিরগুলিতে ৩৬,৩২০ জন বন্যার্ত আশ্রয় নিয়েছেন। এছাড়া বহু জীবজন্তু প্রভাবিত হয়েছে। এর মধ্যে বড় পশু ১৩,৮৮,২৬৬ (জলের তোড়ে ভেসে গেছে ৬টি); ছোট ৮,০৭,৩৩৪ (জলের তোড়ে ভেসে গেছে ৯টি) এবং পোল্ট্রি ১৩,৭৮,৫৭০টি প্রভাবিত হয়েছে। 
গত বন্যার ২০৯টি ছাড়া আজ নতুন করে বসতবাড়ি সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়েছে ৪০টি এবং আংশিক ক্ষতি হয়েছে ১৭টি। এর মধ্যে বরপেটা জেলায় ৩৫টি সম্পূর্ণ এবং ১৭টি বসতবাড়ি আংশিক, বাকসা জেলায় ৫টি সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়েছে। গতকাল চিরাঙের ৩৫টি ও বরপেটার ১২টি বাড়ি সম্পূর্ণ এবং ৪২টি বসতবাড়ি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। 
বন্যাকবলিত ধেমাজি, বরপেটা, চিরাং, বঙাইগাঁও, ধুবড়ি, দক্ষিণ শালমারা, গোয়ালপাড়া, কামরূপ গ্রামীণ এবং মরিগাঁও জেলার বিভিন্ন স্থানে ১৮০টি নৌকা নিয়ে ৩,৯৯১ জন এনডিআরএফ, এসডিআরএফ জওয়ান, এসএসবি স্থানীয় মানুষ এবং প্রশাসনের লোকজন ত্রাণ ও উদ্ধারকার্যে নিয়োজিত হয়েছেন। বেশ কয়েকটি সেতু ও কালভার্ট জলের তোড়ে ভেসে যাওয়ার পাশাপাশি বহু এলাকায় রাস্তাঘাট ধ্বংস হয়ে গেছে। 

Loading...