বাড়ি কলকাতা সোনারপুরে মহিলার গলাকাটা দেহ উদ্ধার, আটক স্বামী

সোনারপুরে মহিলার গলাকাটা দেহ উদ্ধার, আটক স্বামী

61
0

 সোনারপুর, ৫ নভেম্বর : মাঝবয়সী মহিলার গলাকাটা রক্তাক্ত মৃতদেহ উদ্ধার হওয়ার ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়াল দক্ষিণ ২৪ পরগনার সোনারপুরে। সোমবার রাতে সোনারপুর থানার অন্তর্গত ময়লাপোতা এলাকায় বাড়ি থেকেই উদ্ধার করা হয় মহিলার গলাকাটা মৃতদেহ। মৃত মহিলার নাম হল- যমুনা বণিক (৪৫)। মৃতদেহের পাশ থেকে উদ্ধার হয়েছে রক্তমাখা একটি বটি। প্রাথমিক ভাবে পুলিশের অনুমান, গলার নলি কেটে খুন করা হয়েছে ওই মহিলাকে। সোনারপুর থানার পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে। এই ঘটনায় মৃতার স্বামী নেপাল বণিককে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে পুলিশ। পুলিশ সূত্রের খবর, আয়ার কাজ করতেন যুমনাদেবী। সোমবারও কাজে যাওয়ারও কথা ছিল তাঁর। কিন্তু, সোমবার রাতে নেপাল বণিক কাজ সেরে বাড়ি ফিরে দেখেন ঘরের মেঝেতে স্ত্রীর রক্তাক্ত দেহ পড়ে রয়েছে। তিনি চিৎকার শুরু করলে প্রতিবেশীরা ছুটে আসেন। খবর দেওয়া হয় পুলিশে৷ পুলিশ এসে দেহ উদ্ধার করে নিয়ে যায়৷ যমুনার ভাইদের ফোন করে খবর দেন নেপাল নিজেই৷ খবর পেয়ে তারাও আসে ঘটনাস্থলে৷ স্থানীয় সূত্রের খবর, সোমবার সকালে নেপাল কাজে যাওয়ার সময় বাইরে এসেছিল যমুনা। তারপর থেকে তাকে সারাদিন আর কেউ বাড়ির বাইরে বের হতে দেখেননি। স্বামী নেপাল জানিয়েছেন, দুপুরে ফোনে তার সঙ্গে স্ত্রীর শেষ কথা হয়৷ একটি আয়া সেন্টারে কাজ করতেন যমুনা৷ দুপুরে তার কাজে যাওয়ার কথা ছিল৷ বিকেল পাঁচটা নাগাদ বালিগঞ্জ থেকে কাজ সেরে বাড়ি ফেরার পথে বারবার স্ত্রীর মোবাইলে ফোন করলেও তাকে ফোনে পাওয়া যায়নি বলে দাবি নেপালের৷ সোনারপুরে ট্রেন থেকে নেমে বাড়ির জন্য মাছ ও আপেল কিনে বাড়ি ফেরেন নেপাল৷ বাড়ি ফিরে গেট খুলে দেওয়ার জন্য বারবার স্ত্রীকে ডাকাডাকি করলেও কোনও সাড়াশব্দ পাননি৷ তারপর প্রতিবেশী এক যুবককে সঙ্গে নিয়ে তালা খুলে বাড়ির ভেতরে ঢুকে স্ত্রীর রক্তাক্ত দেহ দেখেন তিনি৷ মৄতার পরিবার এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কোনও অভিযোগ থানায় দায়ের করেনি৷ মঙ্গলবার ময়না তদন্তের প্রাথমিক রিপোর্ট পাওয়ার পরেই অভিযোগ দায়ের করবেন বলে তারা জানিয়েছেন৷ তবে, সংবাদমাধ্যমের কাছে মৄতার ভাই এই ঘটনাকে ‘পরিকল্পিত ভাবে খুন’ করা হয়েছে বলেই জানিয়েছেন৷ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে সোনারপুর থানার পুলিশ। 

Loading...