বাড়ি কলকাতা বৃহস্পতিবার প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদ নির্বাচন

বৃহস্পতিবার প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদ নির্বাচন

56
0


কলকাতা, ১৪ নভেম্বর : আড়াই বছর পর বৃহস্পতিবার প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রভোট। ১৯৮৯ সালের পর আবার এবারে ‘আইসা’ এবং এসএফআইয়ের সঙ্গে লড়াইয়ের ময়দানে সিপিআই সমর্থিত এআইএসএফ। বামপন্থী ছাত্র সংগঠনের নিজেদের মধ্যে লড়াই এই ভোটের আকর্ষণ। সূত্রের খবর, সকাল ১১টা থেকে ভোট শুরু হবে। মোট ভোটার ২৩। পাঁচটি মূল পদে লড়াই— প্রেসিডেন্ট, ভাইস প্রেসিড্ন্ট, সাধারণ সম্পাদক, সহকারী সাধারণ সম্পাদক ও গার্লস কমনরুম সম্পাদক। গণণা শুরু হওয়ার কথা দুপুর আড়াইটেতে। প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ নির্বাচনে বাম ঐক্য যে একেবারে ভূলুন্ঠিত তা আবারও প্রকাশ্যে। ছাত্রভোটে সিপিআই ও সিপিএমের ছাত্র সংগঠন যথাক্রমে এআইএসএফ ও এসএফআই মুখোমুখি লড়ছে। এই পরিস্থিতির জন্য একে অপরকে দোষারোপ করতে শুরু করেছে সিপিএম ও সিপিআই। সিপিআইয়ের রাজ্য সম্পাদক স্বপন বন্দ্যোপাধ্যায় এই অনৈক্যের জন্য এসএফআইকেই দায়ী করেছেন। আবার সিপিএমের কলকাতা জেলা সম্পাদক কল্লোল মজুমদার তা মানতে নারাজ। তাঁর দাবি, ছাত্র সংগঠনের উপর সিপিআইয়ের নিয়ন্ত্রণহীনতাই এই পরিস্থিতির জন্য দায়ী। সূত্রের খবর, প্রেসিডেন্সির ছাত্র ভোট বরাবরই রাজনীতিতে একটি চর্চার বিষয়। ফলে, সিপিআই ও সিপিএম কোনও দলই চায়নি, সেখানে তাদের ছাত্র সংগঠনগুলি মুখোমুখি নির্বাচনে লড়াই করুক।এদিকে, আজকের নির্বাচনে ১৩টি সিআর (শ্রেণী প্রতিনিধি), প্রেসিডেন্সির সাধারণ সম্পাদক এবং সহ সাধারণ সম্পাদক আসনে লড়ছে এআইএসএফ। সাধারণ সম্পাদক এবং সহ-সম্পাদক পদে তাঁদের প্রার্থী যথাক্রমে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ছাত্র শাহিদ আলি এবং অরিজি‍ৎ দে। সিআর পদে লড়ছেন রাষ্ট্রবিজ্ঞানের পড়ুয়া চয়ন গঙ্গোপাধ্যায়। তিনি বলেন, “কলেজে এই মুহূর্তে আইসা এবং এসএফআইয়ের কোনও বিকল্প নেই। কিন্তু তাঁদের নিয়ে পড়ুয়াদের বিস্তর অভিযোগ রয়েছে। ফলের তাঁরা বিকল্প চাইছিল অনেকদিন ধরে। ক্যাম্পাসে গণতন্ত্র অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই দুই সংগঠনের দ্বন্দ্বে তা বার বার বিঘ্নিত হচ্ছিল। এবারে পড়ুয়ারা সেই বিকল্প পাবেন। ফলে তাঁরাও যথেষ্ট খুশি।” প্রসঙ্গত, বামফ্রন্টের তরফে বারংবার আলোচনা হয়েছে প্রেসিডেন্সিতে এআইএসএফ, এসএফআই একসঙ্গে ভোটে লড়ুক। কিন্তু প্রেসিডেন্সির এআইএসএফ ইউনিট দলীয় নেতৃত্বের কথা শোনেনি। তাঁরা একা লড়ার সিদ্ধান্তেই অনড় থেকেছে।

Loading...