বাড়ি কলকাতা ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহেই ভাঙা শুরু হতে পারে টালা ব্রীজ

ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহেই ভাঙা শুরু হতে পারে টালা ব্রীজ

64
0

কলকাতা, ৩০ নভেম্বর : আগেই টালা ব্রিজ দিয়ে অনির্দিষ্ট কালের জন্য বড় গাড়ি চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল প্রশাসন| ছাড় পেয়েছিল তিন টনের মধ্যে ছোট গাড়ি এবং ছোট পণ্যবাহী গাড়িগুলি| এবার সেই ছোট গাড়ি চলাচলের উপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হল| আগামী দশ দিনের মধ্যেই টালা ব্রিজ দিয়ে ছোট গাড়ি চলাচলও বন্ধ হতে চলেছে। সূত্রের খবর ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহেই ব্রিজ ভাঙার কাজ শুরু হবে|

 ব্রিজ বিশেষজ্ঞ ভি কে রায়না টালা ব্রীজকে ভেঙে ফেলতে হবে বলে নবান্নে মুখ্যসচিবের কাছে চূড়ান্ত রিপোর্ট জমা দিয়েছেন| তিনি জানিয়েছিলেন পুরো ভেঙে ফেলে নতুন করে তৈরী করতে হবে টালা ব্রিজ| এরপরেই নবান্নে এক উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় ব্রীজ ভেঙে ফেলার| তবে ব্রীজের অবস্থা খারাপ থাকায় গত দের মাস ধরে বন্ধ আছে বাস চলাচল| এর বিকল্প হিসেবে চালু হয়েছিল অটোর নয়া রুটও। কিন্তু এবার সেই অটোও আর চলতে পারবে না টালা ব্রীজ দিয়ে|

 তবে পরিবহণ দফতর সূত্রে খবর, অটো থাকবে। কিন্তু রুট ঘুরিয়ে দেওয়া হবে| অর্থাৎ সিঁথি থেকে টালা ব্রিজের আগে পর্যন্ত চলবে একদিকের অটো। আবার শ্যামবাজার থেকে টালার যে অংশ ভাঙবে তার আগে পর্যন্ত চলবে উলটোদিকের অটো। সেক্ষেত্রে কমিয়ে দেওয়া হবে ভাড়াও। পাশাপাশি ছোট গাড়িগুলিকে চিড়িয়া মোড় এবং চিৎপুর লকগেট দিয়ে ঘুরিয়ে দেওয়া হবে। অন্যদিকে শ্যামবাজার থেকে এতদিন যে ডানলপগামী বাসই ধরা যেত সেই বাসের জন্য এখন থেকে তাঁদের অপেক্ষা করতে হবে শোভাবাজারে। কারণ বিটি রোডে ওঠার জন্য শোভাবাজার হয়ে রাজবল্লভপাড়া দিয়ে বাস চলে যাবে লকগেট ব্রিজ। সেখান দিয়েই চিৎপুর থানা হয়ে চিড়িয়ামোড় দিয়ে বিটি রোডে উঠবে সরকারি এবং বেসরকারি উভয় বাসই। ইতিমধ্যেই ব্রিজ সংক্রান্ত যাবতীয় সমীক্ষা শেষ।

পূর্ত দফতরের নকশা অনুযায়ী নয়া টালাব্রীজের মডেল তৈরি করেছে পুরসভা। আপাতত ব্রীজের নকশাটি রাখা আছে পুরসভার সদর দফতরে। এই নয়া নকশার ব্রীজের নীচ থেকে কিভাবে যাবে জলের পাইপ লাইন। এছারাও এই ব্রীজের নীচ দিয়েই গেছে রেল লাইন। তাই নতুন ব্রীজের নকশায় যাতে সেই রেল লাইনে কোনও রকম সমস্যা না হয় তা খতিয়ে দেখতে বৈঠক হবে কলকাতা পুরসভায়। জলের পাইপলাইন ও রেলের নকশার একটি ব্লু প্রিন্টের উপর রেখে দেখা হবে নয়া নকশার সাথে সেই লাইনের কোনও সমস্যা হচ্ছে কিনা। এই বিষয়ে পুরকর্তৃপক্ষ বৈঠকে নকসা অনুমোদন পেলে তা পাঠান হবে রাইটসের কাছে। রাইটসের চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের পরেই নকশা অনুযায়ী পূর্ত দফতর তৈরি করবে এই নয়া টালা ব্রীজ।

Loading...