বাড়ি কলকাতা টালা ব্রিজে ছোট বাস চালাবে রাজ্য সরকার

টালা ব্রিজে ছোট বাস চালাবে রাজ্য সরকার

47
0

কলকাতা, ১ নভেম্বর : টালা ব্রিজে ছোট বাস চালাবে রাজ্য সরকার৷ টালা ব্রিজে বাস চলাচল বন্ধ হওয়ার কারণে ঘুরপথে যেতে হচ্ছে বিভিন্ন রুটের বাসকে ৷ উত্তর শহরতলির যাত্রীদের যান যন্ত্রণা থেকে মুক্তি দিতে ডানলপ,এয়ারপোর্ট,নাগেরবাজার থেকে ছোট গাড়ি চালানোর পথে হাঁটছে প্রশাসন । জানা গিয়েছে, ওই এলাকাগুলি থেকে ৫০টি ছোট ২৪ আসনের বাস এবং ১০০টি মিনি বাস চালানোর পরিকল্পনা নিয়েছে পরিবহণ দফতর । তবে কোন পথে ওই মিনি বাস গুলো চলবে সে বিষয়ে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি বলে খবর ।পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী বলেন, ‘বরাহনগর-কুঠিঘাট থেকে ফেয়ারলি প্লেস পর্যন্ত লঞ্চ পরিষেবা ইতিমধ্যেই চালু করা হয়েছে । ছোট গাড়ির সংখ্যাও বাড়ানো হচ্ছে ।’ বেশ কিছু রুটের বাস বন্ধ হলেও সরকারি বাস নামিয়ে পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে চাইছে পরিবহণ দফতর । টালা ব্রিজে বড় গাড়ি চলা বন্ধ হওয়ার পরেই একটি নতুন অটো রুট চালু হয়েছে । পুজোর পর থেকেই সিঁথির মোড়-বাগবাজার বাটা মোড় পর্যন্ত চলছে অটো । বিভিন্ন রুট থেকে একশো অটো তুলে এনে এখন এই রুটে চালানো হচ্ছে । পরিবহণ দফতরের এক কর্তা বলেন, ‘ওলা, উব্‌রকে আমরা ইতিমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছি, টালা ব্রিজ বন্ধ হওয়ার জেরে উত্তরের পরিবহণ সমস্যার মোকাবিলায় ওই এলাকায় সারাদিনই যাতে পর্যাপ্ত গাড়ি থাকে তার ব্যবস্থা করতে হবে । এ ব্যাপারে পরিষেবার নির্দিষ্ট পরিকল্পনা শুক্রবারের মধ্যেই দুই সংস্থাকেই দিতে বলা হয়েছে ।’ আপাতত বরাহনগর-কুঠিঘাট থেকে ফেয়ারলি প্লেস পর্যন্ত ৪টি ২০০ আসনের লঞ্চ চলছে। আগামীদিনে তা বাড়িয়ে ১০টি করা হবে ।উত্তর শহরতলি থেকে যে সব বাস ছাড়ে তাদের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ রুট হল কামারহাটি মোড় থেকে বিটি রোড হয়ে টালা ব্রিজ ধরে শিয়ালদহ থেকে আলিপুর চিড়িয়াখানা। ২৩০ নম্বর এই রুটের ১৯ কিলোমিটার রাস্তায় প্রতিদিন ৬২টি বাস চলাচল করত । টালা ব্রিজ বন্ধ হওয়ার পর থেকে ২৩০ রুটের বাসকেও ঘুরিয়ে দেওয়া হয় । বাসকর্মীদের অভিযোগ, তাঁদের সঙ্গে কোনও আলোচনা না করেই কামারহাটি থেকে দমদম চিড়িয়ামোড়ের রাস্তা ধরে বাগবাজার হয়ে হিডকো, ফুলবাগান, বেলেঘাটা ঘুরে শিয়ালদহ হয়ে চিড়িয়াখানা যাওয়ার রুট ম্যাপ তাদের দেওয়া হয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে । গত একমাস ধরে ১৯ কিলোমিটারের পরিবর্তে একটি ট্রিপে ৩২ কিলোমিটার রাস্তা তাদের অতিক্রম করতে হচ্ছিল।বাস ইউনিয়নের তরফে স্থানীয় সাংসদ সৌগত রায় এবং পরিবহণ দফতরে তাঁরা রুট পরিবর্তনের আবেদন জানিয়ে চিঠিও দেন । তাঁদের দাবি সেভেন ট্যাঙ্কস, আরজি কর হয়ে শ্যামবাজারের রাস্তায় বাস চালাতে দেওয়া হোক । এরই মধ্যে বুধবার শ্যামবাজারের কাছে তাদের আটটি বাসকে পুলিশ প্রশাসন হেনস্থা করে বলে অভিযোগ তোলেন বাস মালিকরা । ক্ষতির বহর ও পুলিশি হেনস্থার কারণে বৃহস্পতিবার থেকে পাকাপাকি ভাবে বাস বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বাস মালিকরা । এর ফলে বাস চালক, কন্ডাক্টর ও খালাসি মিলিয়ে প্রায় ৩৭৫ জন কর্মচারী কর্মচ্যুত হয়েছেন।

Loading...