বাড়ি রাজ্য জগদ্ধাত্রী পুজোর শেষ দিনটা সুষ্ঠভাবে শেষ করতে ততপর প্রশাসন

জগদ্ধাত্রী পুজোর শেষ দিনটা সুষ্ঠভাবে শেষ করতে ততপর প্রশাসন

52
0

হুগলি, ৭ নভেম্বর : নমঃ নমঃ করে পুজো চারটি দিন ভালোই কাটলো হুগলি জেলা প্রশাসনের । এক প্রকার অগ্নী পরীক্ষা দিতে হলো চলে যাওয়া চারটে দিনগুলিতে। এবারে নবমী বারতি একদিনের হওয়াতে চিন্তার ভাঁজ একটা ছিলই।সামান্য কিছু ঘটনা বাদ দিলে  এখনও পর্যন্ত কোন রকম অপৃতিকর ঘটনা এখনও ঘটেনি। তাই বাকি অাজকের শেষ দিনটাতেও উজার করে দিতে প্রস্তুত প্রশাসন। 
চন্দননগরে চার দিনের জগদ্ধাত্রী পুজোর আজ ভাসান। এখানকার বর্ণাঢ্য সন্ধ্যার প্রতিমা নিরঞ্জনের শোভাযাত্রা শুরু হবে সন্ধ্যা পাঁচটা নাগাদ। চলবে সারারাত ধরে। দুশো ঊনচল্লিশটি লরিতে আলোকসজ্জা ও প্রতিমা নিয়ে এই শোভাযাত্রা শহর পরিক্রমা করবে। চন্দননগর কেন্দ্রীয় জগদ্ধাত্রী পুজো কমিটির অধীনে ১৭১-টি জগদ্ধাত্রী পুজো কমিটির পুজো হয়। এরমধ্যে এবছর মোট ছিয়াত্তরটি প্রতিমা এই শোভাযাত্রায় অংশ নিচ্ছে।বিসর্জনে এখানকার অন্যতম প্রধান  আকর্ষণ বিখ্যাত  আলোকসজ্জা।এক প্রকার সারাবছরের রসদ জোগানের উদ্দেশ্যে এই শোভাযাত্রায় চন্দননগরের আলোক শিল্পীরা বিভিন্ন বিষয় ফুটিয়ে তোলেন। এবছরও নানান নতুন বিষয় তুলে ধরেছেন বলে এক অালোক শিল্পী জানান। এদিকে,যে সব বারোয়ারী পুজো কমিটির প্রতিমা এই নিরঞ্জন শোভাযাত্রায় অংশ নিচ্ছে না সেই সব বারোয়ারীর প্রতিমা বিসর্জন সকাল এগারো টা থেকে শুরু হবে চলবে বিকাল চারটে পর্যন্ত। সব মিলিয়ে মোট তেরোটি গঙ্গার ঘাটে এই বিসর্জন চলবে। অন্যদিকে, এই শোভাযাত্রা প্রতি বছরের মতো এবারও সুষ্ঠু ও সুশৃঙ্খলভাবে সম্পন্ন করতে পুলিশ প্রশাসন, চন্দননগর কেন্দ্রীয় জগদ্ধাত্রী পুজো কমিটি এবং স্থানীয় পুরসভা সব রকম ব্যবস্থা নিয়েছে। নিরাপত্তা আঁটোসাঁটো করা হয়েছে। ড্রোন, সিসিটিভির নজরদারি থাকছে। গঙ্গার ঘাট গুলিতে স্পিড বোর্ডের মাধ্যমে নজরদারি চালাবে জল পুলিশ। শহরের বিভিন্ন স্থানে পুলিশি সহায়তা কেন্দ্রর পাশাপাশি কয়েক হাজার ঊর্দিধারী এবং সাদা পোষাকের পুলিশ থাকছে। পুরসভার পক্ষ থেকে থাকছে বায়ো টয়লেট।শুধু দর্শক নয়, শহরে প্রবেশ করবে একাধিক ভিভিআইপি, তাদেরকে কিভাবে সামাল দেবে তারও ছক তৈরি প্রশাসনিক। সব মিলিয়ে মেগা কার্নিভালের জন্য তৈরী ফরাসডাঙা।

Loading...