বাড়ি রাজ্য জগদ্ধাত্রী আরাধনায় মুখরিত শিল্পশহর রিষড়া

জগদ্ধাত্রী আরাধনায় মুখরিত শিল্পশহর রিষড়া

46
0

রিষড়া(হুগলী), ৫ নভেম্বর : জগদ্ধাত্রী পুজো বলতেই সকলের মনে প্রথম নামটা যেটা ভেসে ওঠে তা হল চন্দননগর। কিন্তু হুগলী জেলায় আরও একটি শহর রয়েছে যা জগদ্ধাত্রী উপসনায় নিজস্ব সাংস্কৃতিক স্বতন্ত্রতা গড়ে তুলেছে। জগদ্ধাত্রী আরধনায় চন্দননগরের মতো ঐতিহ্য না থাকলেও নিজস্বতায় উজ্জ্বল শিল্পশহর রিষড়া । ব্রিটিশ আমল থেকেই গঙ্গা তীরবর্তী এই শহরে গড়ে উঠেছে বিভিন্ন কলকারখানা। কিন্তু বর্তমান সময়ে একাধিক কারখানা বন্ধ হয়ে গেলেও ভাটা পড়েনি জগদ্ধাত্রীর আরাধনায়। এখানকার সব থেকে উল্লেখজনক পুজোগুলি মধ্যে হল যুবগোষ্ঠীর লেলিন মাঠের পুজো। পাশাপাশি রয়েছে তেতুল তলা, হরিসভা, প্রেম মন্দির, চারবাতি মতো পুজোগুলি।
 এবার ইংল্যাণ্ডের মধ্যযুগীয় একটি গির্জা আদলে মন্ডপ তৈরি করা হয়েছে যুবগোষ্ঠীর লেলিন মাঠের পুজোতে। মূলত সর্বধর্মসমন্বয়ের ভাবনা এই মণ্ডপে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। পাঠকাঠি অসাধারণ কারুকার্য মণ্ডপের গাত্রে ব্যবহার করা হয়েছে। এমনকি মণ্ডপের ভেতরেও পাঠকাঠির অসাধারণ শিল্প সুষমা দেখার মতো। মঙ্গলবার যুবগোষ্ঠীর সম্পাদক সুপ্রিয় দাশগুপ্ত জানিয়েছেন, প্রায় একমাস সময় লেগেছে এই মণ্ডপটি গড়ে তুলতে। শিল্পী উইলিয়ান সরকারের ভাবনায় এই মণ্ডপ গড়ে তোলা হয়েছে। মণ্ডপের সজ্জায় শিল্পী নিজের কল্পনা বেশি ব্যবহার করেছে। এবছর ৩৯ বছরে পড়ল এই পুজো। সুপ্রিয়বাবু জানিয়েছেন, এদিন রাতে পুজোটির উদ্বোধন করবেন শ্রীরামপুর লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। পুজো উপলক্ষ্যে মেলা বসেছে লেলিন মাঠে। বুধবারে পুজোয় বসবেন পুরোহিত। রবিবার হবে বিসর্জন। উল্লেখ করা যেতে পারে রিষড়ায় নবমী তিথি থেকে পুজো শুরু হয়। পরে মণ্ডপে চারদিন ঠাকুর রেখে দেওয়া হয়।  এদিকে, বাংলার প্রাচীন ঐতিহ্য চালচিত্র ফুটিয়ে তোলা হয়েছে তেতুল তলার রবীন্দ সংঘের পুজোতে। গোটা মণ্ডপটি বাঙালির প্রাচীন ঐতিহ্য চালচিত্র থিমে গড়ে তোলা হয়েছে। শিল্পী প্রশান্ত পালের ভাবনায় মণ্ডপ এবং প্রতিমা গড়ে তোলা হয়েছে। ত্রৈমাত্রিক রেলিফের মাধ্যমে শিব-দুর্গা, হিন্দু দেবদেবী, পৌরাণিক কাহিনী মণ্ডপের দেওয়ালে তুলে ধরা হয়েছে। ৩২ বছরের পুরনো পুজোটি মঙ্গলবার বিকেলে উদ্বোধন করবেন সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন শিল্পী প্রশান্ত পাল জানিয়েছেন, জগদ্ধাত্রী এবং দুর্গা পুজোয় ঐতিহ্যগত ভাবে চালচিত্র একান্ত প্রয়োজন। আর চালচিত্রের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ হচ্ছে পটচিত্র। কিন্তু থিমের দাপটে চালচিত্র অনেক পুজোতেই বিদায় নিয়েছে। নতুন প্রজন্মের কাছে চালচিত্র সম্পর্কে জানান দেওয়ার জন্যই এই উদ্যোগ। উল্লেখ করা যেতে পারে দুর্গা এবং জগদ্ধাত্রীর পেছনে থাকে চালচিত্র।  পৌরাণিক দেবদেবীদের রণক্ষেত্রে লড়াই তুলে ধরা হয়েছে সারদামাতা ফরওয়ার্ড ক্লাবের পুজোতে। পুজোর থিম একাই একশো। প্লাইউড, টিন, সামুদ্রিক পাথর দিয়ে মণ্ডপ গড়ে তোলা হয়েছে। ৪৭ বছরে পড়েছে এই পুজো। মন্দির গাত্রে বিভিন্ন পৌরাণিক কাহিনী ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।

Loading...