বাড়ি প্রথম পৃষ্ঠা কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার প্রতিদ্বন্দ্বী নয়, দেশের উন্নয়নে অংশগ্রহণ করছে : মোদী

কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার প্রতিদ্বন্দ্বী নয়, দেশের উন্নয়নে অংশগ্রহণ করছে : মোদী

65
0

নয়াদিল্লি, ১৮ নভেম্বর : ভারতের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর সাফল্যের জন্য জাতীয় দৃষ্টিভঙ্গি এবং আঞ্চলিক প্রত্যাশার মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখা প্রয়োজন বলে জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তিনি বলেন, দেশ ও রাজ্যের উন্নয়ন একে অপরের সাথে জড়িয়ে রয়েছে এবং কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারগুলি একে অপরের প্রতিদ্বন্দ্বী নয়, দেশের উন্নয়নর যাত্রায় সমানভাগীদার। সোমবার রাজ্যসভার ২৫০তম অধিবেশন উপলক্ষ্যে আয়োজিত বিশেষ আলোচনায় অংশ নেওয়ার সময় তিনি বলেন, রাজ্যসভা উচ্চসভা হিসাবে নজরদারি এবং ভারসাম্য হিসাবে কাজ করে, কিন্তু নিয়ন্ত্রণ ও ভারসাম্য রক্ষার ক্ষেত্রে বাধা সৃষ্টি করার প্রবণতা কোনও ভাবেই উপযুক্ত নয়। সংসদের নিম্নকক্ষ (লোকসভা) এবং উচ্চকক্ষের (রাজ্যসভা) তুলনা করে মোদী বলেন, লোকসভা নিম্নকক্ষ হিসাবে জমির বাস্তবতার সঙ্গে জড়িত, অথচ উচ্চকক্ষ হওয়ার কারণে রাজ্যসভার দৃষ্টি ব্যাপক ও পাখির মত রয়েছে। রাজ্যসভার দূরদর্শিতা অর্থাৎ সংসদে আইনসভার সার্থক রূপ সম্পন্ন করতে খুব সহায়ক হয়। প্রধানমন্ত্রী তিন তালাক বিষয়ক বিল ও সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপ করণের বিষয়ে রাজ্যসভার ভূমিকার প্রশংসা করে বলেন, পরিবর্তনের সময়ের প্রয়োজনীয়তা বিবেচনায় রেখে এই আইনসভা করেছে। রাজ্যসভায় ক্ষমতাসীনদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা না থাকা সত্ত্বেও জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ৩৭০ অনুচ্ছেদ অপসারণের প্রসঙ্গে রাজ্যসভা নেতৃত্ব দিয়েছিল। মোদী বলেছিলেন যে ভারতীয় সংবিধানে ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপ করণের উদ্যোগও রাজ্যসভায় হয়েছিল এবং এটি একটি খুশির কাকতালীয় বিষয় যে দশক পরে দশক এই অনুচ্ছেদ অপসারণের উদ্যোগ নিয়েছিল। দরিদ্র জনগণকে রিজার্ভেশন বিলের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, সংরক্ষণের বিষয়টি প্রায়শই বিতর্ক ও উত্তেজনার কারণ হয়ে দাঁড়ায়, কিন্তু এই কক্ষ যখন এই বিষয়ে আইন করার উদ্যোগ নিয়েছিল তখন দেশে কিছুটা উত্তেজনা ও বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছিল, তবে বিতর্ক হয়নি। প্রধানমন্ত্রী হিসাবে তাঁর অভিজ্ঞতার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, রাজ্যসভায় আলোচনা থেকে তাঁকে অনেক কিছু শেখার ও বোঝার সুযোগ দেওয়া হয়েছে। লোকসভা যে বিষয়গুলি তাৎক্ষণিকভাবে মূল্যায়ন করতে পারে না তা রাজ্যসভা এবং সংসদের মাধ্যমে প্রকাশিত হয় এবং তাদের সুবিধা পায়। সরকারকে আটকে দেওয়ার বিষয়ে রাজ্যসভার ভূমিকা সম্পর্কে তিনি বলেন, সংসদীয় যাত্রায় শুরুর দিকে বিরোধী দলগুলির খুব কম উপস্থিতি থাকা সত্ত্বেও, এই কক্ষে সরকারের নিরাঙ্কুসতার ওপর বাধা তৈরি করা হয়েছে। রাজ্যসভাকে দীর্ঘজীবী হিসাবে বর্ণনা করে তিনি বলেন, স্থিতিশীলতা এবং বৈচিত্র্য এই কক্ষের বৈশিষ্ট্য। এই কক্ষ কখনও ভেঙে যায় না। একই সময়ে, রাজ্যগুলির বার্তা এই কক্ষে উচ্চস্বরে প্রতিধ্বনিত হয়। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিভিন্নস্তরে জীবনের অনেক বিশেষ ব্যক্তি রয়েছেন, যাঁরা জাতীয় রাজনীতিতে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখতে পারেন, তবে নির্বাচনী আঙ্গিনায় তাদের পক্ষে জয়লাভ সম্ভব নয়। শিক্ষা, বিজ্ঞান, সাহিত্য, শিল্প ও ক্রীড়া বিশিষ্ট খ্যাতিমান ব্যক্তিরা এখানে পৌঁছে সংসদীয় কার্যক্রম সমৃদ্ধ করেছেন। এই প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী মোদী রাজ্যসভায় সংবিধানের স্রষ্টা ডাঃ বি আর আম্বেদকের উপস্থিতির কথা উল্লেখ করেন। কংগ্রেসের নাম না নিয়ে মোদী বলেন, ডঃ আম্বেদকর কিছু কারণে লোকসভায় পৌঁছাতে পারেননি, কিন্তু রাজ্যসভার সদস্য হিসাবে তিনি সংসদীয় জীবনে অবদান রেখেছিলেন। নিজের বক্তব্যে মোদী রাজ্যসভার প্রথম চেয়ারম্যান সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণন এবং প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ীর উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, সংসদীয় জীবনে রাজ্যসভাকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে হবে। সংসদীয় পদ্ধতির প্রবাহ লোকসভা এবং রাজ্যসভার দুই পক্ষের মধ্যে দিয়ে যায়। উভয় প্রান্তের দৃষ্টিকোণ সমানভাবে প্রয়োজন রয়েছে। সংসদীয় পদ্ধতির প্রবাহ লোকসভা এবং রাজ্যসভার দুই পক্ষের মধ্যে দিয়ে যায়। উভয় প্রান্তের দৃষ্টিকোণ সমানভাবে প্রয়োজন রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০০৩ সালে রাজ্যসভার ২০০ তম অধিবেশন উপলক্ষে অটলজি বলেন, রাজ্যসভা দ্বিতীয় ঘর, তবে কেউই দ্বিতীয় স্তরের কক্ষ হিসাবে বিবেচনা করার ভুল উচিত নয়। মোদী এই বিবৃতিতে আরও বলেন, রাজ্যসভা কোনও দ্বিতীয় স্তরের কক্ষ নয়, একটি সহযোগী কক্ষ।

Loading...