বাড়ি কলকাতা কালীপুজোয় বাজি পোড়ানোর নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দিল কলকাতা

কালীপুজোয় বাজি পোড়ানোর নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দিল কলকাতা

65
0

পুলিশকলকাতা, ২৫ সেপ্টেম্বর : কালীপুজোয় বাজি পোড়ানোর এবার নির্দিষ্ট সীমা বেঁধে দিল কলকাতা পুলিশ | ইতিমধ্যেই এই বিষয়ে জনগনকে সচেতন করতে কলকাতা পুলিশের তরফ থেকে লিফলেট-পোস্টার তৈরী করা হয়েছে । সেখানে জানানো হয়েছে কালী পুজোর রাতে বাজি পোড়ানো যাবে রাত ৮ টা থেকে ১০ টা পর্যন্ত | এই পোস্টার ছাপা হয়েছে বাংলা,  ও ইংরেজি এই তিন ভাষাতেই |
কলকাতা পুলিশের এই নির্দেশিকায় লেখা হয়েছে, “সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে বাজি পোড়ানো যাবে রাত ৮ টা থেকে ১০ টা পর্যন্ত । নিয়ম না মানলে তা দণ্ডনীয় অপরাধ । পশ্চিমবঙ্গ দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের নিয়ম অনুসারে ৯০ ডেসিবেলের বেশি মাত্রায় শব্দবাজি ফাটানো নিষেধ |” এরপরেই কলকাতা পুলিশের তরফ থেকে জনগনের উদ্দেশ্যে একটি বার্তা দিয়ে বলা হয়েছে “শব্দবাজির অত্যাচার নয়, আলোর উৎসবে পরিণত হোক দীপাবলি ও কালীপুজো ।”
প্রসঙ্গত, সুপ্রিম কোর্ট এই নির্দেশ দিয়েছিল বেশ কয়েক বছর আগে । এবার সেই নির্দেশই অক্ষরে অক্ষরে পালন করতে চাইছে কলকাতা পুলিশ | একইভাবে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ মেনে এবারের কালীপুজোয় নির্দিষ্ট ফাঁকা জায়গায় বাজি ফাটানো হবে বলে নির্দেশ দিলেন লালবাজারের পুলিশকর্তারা । এর জন্য শহরের সমস্ত ডিভিশনের ডিসিদের মঙ্গলবার লালবাজারে ডেকে পাঠানো হয় । তাঁদের সঙ্গে এ বিষয়ে জরুরি বৈঠকে বসেন কলকাতা পুলিশের যুগ্ম নগরপাল (অপরাধ) মুরলিধর শর্মা । এই বৈঠকে তিনি ডিসিদের জানিয়ে দেন, “প্রতিটি ডিভিশনের তিন থেকে চারটি নির্দিষ্ট ফাঁকা জায়গা ঠিক করতে হবে । তা পার্কই হোক, কিংবা ফাঁকা মাঠ। সেইসমস্ত ফাঁকা জায়গায় কালীপুজোর রাতে বাজি ফাটাবেন বিভিন্ন থানা এলাকার মানুষ । এর জন্য এলাকায়-এলাকায় প্রচার চালাতে হবে ।”
অন্যদিকে আবাসন এবং বহুতলের ম্যানেজিং কমিটিগুলিকে নিষিদ্ধ বাজি রোখার জন্য তৎপর হতে অনুরোধ জানিয়েছে পুলিশ । আবাসনের সেক্রেটারি বা প্রেসিডেন্টেদেরও ইতিমধ্যে ডেকে বলে দেওয়া হয়েছে যে ওই আবাসনে বাজি সংক্রান্ত কোনও অভিযোগ এলে কমিটির পদাধিকারীদের উপর তার দায়ভার এসে বর্তাবে । ইতিমধ্যেই উদ্যোক্তাদেরও বলা হয়েছে, চাঁদা তুলতে যাওয়ার সময় তাঁরা যেন নিষিদ্ধ বাজি না পোড়ানোর জন্য অনুরোধ করেন মানুষকে । এছাড়াও শব্দবাজির দৌরাত্ম্য রুখতে এবার পুলিশ আবাসনে গিয়েও জোরদার প্রচার চালানোর নির্দেশ দিয়েছেন পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা । গত কয়েক বছরে শব্দবাজি ফাটানোর অভিযোগ এসেছে শহরের বিভিন্ন পুলিশ আবাসন থেকেও । প্রশ্ন উঠেছে, যেখানে পুলিশকর্মীরা শব্দবাজি রোধ করার জন্য কলকাতা জুড়ে দৌড়াদৌড়ি করেন, সেখানে তাঁদের বাসস্থানেই কীভাবে শব্দবাজি ফাটে ? তাই এবার এই বিষয়ে কড়া হয়েছেন পুলিশ কমিশনার । পুলিশ আবাসনগুলিতে মাইক নিয়ে প্রচার করে সচেতনতা গড়ে তুলতে নির্দেশ দিয়েছেন তিনি । সব মিলিয়ে এবার সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী কালীপুজর রাতে শহরকে সব দানবের হাত থেকে বাঁচাতে বদ্ধপরিকর হয়েছে কলকাতা পুলিশ | 

Loading...