বাড়ি ভ্রমণ কলকাতা থেকে সরাসরি পৌঁছে যাওয়া যাচ্ছে বকখালি

কলকাতা থেকে সরাসরি পৌঁছে যাওয়া যাচ্ছে বকখালি

221
0

বকখালি,২০ জুন এখন কলকাতা থেকে সরাসরি পৌঁছে যাওয়া যাচ্ছে বকখালি ।  হাতানিয়া-দোয়ানিয়া নদীর উপর তৈরি হওয়া ব্রিজ গত মার্চ মাসেই চালু হয়ে গেছে । জুন মাসের ১ তারিখ থেকে চলছে বাইশটি বাস । ফলে বকখালি যাতায়াতে আর কোনও সমস্যাই নেই । চাইলেই সরাসরি বকখালি । কলকাতা থেকে মাত্রা আড়াই-তিন ঘণ্টায় । তা হলেই সমুদ্রের সামনে । সময় থমকে দাঁড়িয়ে, ঢেউ গুনতে পারেন যে কেউ । কলকাতার কাছেই যে বকখালি । মন খালি চাইতেই পারে, সময় পেলেই বকখালি ঘুরে আসতে । এখন আর যাতায়াতেরও সমস্যা নেই । 
এতদিন একেবারে সোজাসুজি বকখালি যাবার মতো কোনো ব্যবস্থা ছিল না । শিয়ালদাহ স্টেশন থেকে নামখানা লোকাল ধরে নামখানা স্টেশন নামতে হয়, প্রায় ৩ ঘন্টা মতো সময় লাগে । আর বাস এ গেলে ধর্মতলা থেকে নামখানা যাবার এ.সি, নন এ.সি বাস সার্ভিস আছে, সময় লাগে প্রায় ৩ ঘন্টার কিছু বেশি । ভেসেল পরিষেবা বন্ধ ছিল তাই বাসে নামখানা বাসস্ট্যান্ড এ নামতে হত । নামখানা বাসস্ট্যান্ড অথবা নামখানা স্টেশন থেকে অনেক ভ্যান ও টোটো পাওয়া যায় নদীর ঘাট অব্দি যাওয়ার জন্য । নৌকায় নদী পার হতে ৪-৫ মিনিট সময় লাগে, ভাড়া মাত্র ১ টাকা । নদী পার হয়ে অনেক বাস ও মারুতি পাওয়া যায় । বাস ভাড়া ২৫ টাকা, মারুতি ভাড়া রিসার্ভ প্রায় ৩০০ টাকার মতো লাগে। বকখালি পৌঁছাতে মিনিট ২৫ সময় লাগে । সরাসরি বাস চালু হবার জন্য আর এই সমস্ত ঝক্কি পোহাতে হবে না । 

ভূতল পরিবহণ নিগম থেকে চিন্তা-ভাবনা শুরু হয়ে ছিল অনেক আগেই । পরিবহন দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা পরিষদের অধ্যক্ষ শ্রীমন্ত মালি দু’টি এসি বাস চালু করার প্রস্তাব দিয়েছিলেন । তিনি বলেন, এমনিতে সপ্তাহে একদিন, রবিবার, কলকাতা থেকে দুপুর ১টায় একটি এসি বাস বকখালি পর্যন্ত চালাচ্ছিল সিটিসি । নামখানায় হাতানিয়া-দোয়ানিয়া নদীতে ভেসেল পরিষেবার সমস্যা হওয়ার জন্য তা অনিয়মিত হয়ে যায় । এবার নারায়ণপুর থেকে নামখানায় নদীর উপর সেতু হয়ে যাওয়ার জন্য ভেসেল সমস্যা আর থাকছে না । ফলে এসি বাস চালানোর ক্ষেত্রে অনেক সুবিধা হয়ে গেল । 
শুধু তাই নয়, এতদিন কলকাতা থেকে বকখালি যেতে ছ’ঘণ্টা সময় লেগে যেত । সেতু হয়ে যাওয়ায় তা অনেকটাই কমে গেছে । তিন থেকে সওয়া তিন ঘণ্টা লাগছে । চলতি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে এই নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে একটি বেসরকারি সুপার ফাস্ট লাক্সারি বাস কলকাতা থেকে বকখালি যাতায়াত শুরু করে দিয়েছে । কলকাতা থেকে দুপুরে ছাড়ছে । বকখালি থেকে ছাড়ছে ভোরে ।
জানা গেছে, হাতানিয়া-দোয়ানিয়া নদীর উপর সেতু সম্পূর্ণ হয়ে যাওয়ার পর থেকে কলকাতা থেকে সরাসরি বকখালি বাস চালুর জন্য বিভিন্ন মহল থেকে চাপ আসছিল । তার জেরে চলতি মাস থেকে পর্যায়ক্রমে সরকারি ও বেসরকারি বাস চালুর সিদ্ধান্ত হয় । আপাতত, কলকাতা ও বকখালির মধ্যে ভূতল পরিবহণ নিগম মোট ১৪টি নন এসি বাস চালানোর অনুমোদন দিয়েছে । তার মধ্যে আপাতত দশটি বাস চলছে । চলছে ৮ টি এসি বাস । পরবর্তী সময়ে লোকবল বাড়ানো হলে বাসও বাড়বে । সময় সারণি অনুসারে একঘণ্টা অন্তর কলকাতা থেকে ছাড়ছে । যথাক্রমে সকাল ছ’টা, সাতটা, আটটা, দশটা । এরপর দুপুর ১টা, ১ টা ৪৫, ২ টো ৩০, ৩টে ১৫ বিকেল ৪-১৫, ৫ টা ও পৌনে ছ’টা । বকখালি থেকে ছাড়ছে ভোর ৫ টা । ধর্মতলা হয়ে হাওড়া যাচ্ছে । এরপর সাড়ে পাঁচটায় বাসটি যাচ্ছে হাওড়া পর্যন্ত । ছ’টা (কলকাতা), সাড়ে ছ’টা (হাওড়া), সাতটা (কলকাতা), সাড়ে সাতটা ( হাওড়া), আটটা, দশটা (হাওড়া), দুপুর ১২টা, ১ টা কলকাতা, দুপুর দুটো ও বিকেল চারটে দুটোই হাওড়া পর্যন্ত যাচ্ছে । 
এদিকে, বকখালিতে প্রতিদিন কলকাতা থেকে একসঙ্গে এত বাস দাঁড়ানো ও তার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সম্প্রতি নামখানা বিডিও অফিসে বৈঠক ডাকা হয় । সেখানে পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি কল্পনা মালি মণ্ডল, বিডিও রাজীব আহমেদ, শ্রীমন্ত মালি, বকখালি-ফ্রেজারগঞ্জ লজ ওনার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি বিদ্যুৎকুমার দিন্দা ছাড়াও সরকারি ও বেসরকারি বাস মালিক ও আধিকারিকরা হাজির ছিলেন । সেখানে সিদ্ধান্ত হয়েছে, সরকারি ও বেসরকারি বাস নিয়ন্ত্রণের জন্য বকখালিতে কেন্দ্রীয় বাস সিন্ডিকেট কমিটি হবে । তাতে প্রশাসন, পুলিস, হোটেল মালিক ছাড়াও বাসের লোকজন থাকবেন । 
পাশাপাশি আরও একটি সিদ্ধান্ত হয়, বকখালি থেকে নামখানা ২৪৩, এবং কাকদ্বীপ লট নম্বর ৮ পর্যন্ত থেকে নারায়ণপুর পর্যন্ত ৯৪ এই দু’টি রুটকে এক্সটেনশন করা হয় । আগামী রবিবার ২৩ জুন থেকে ওই দু’টি রুটের ৩৪টি বাস নামখানার সেতু দিয়ে বকখালি থেকে কাকদ্বীপ লট নম্বর ৮ পর্যন্ত চলবে । এর ফলে পর্যটকরা গঙ্গা সাগর থেকে ফেরার সময় কাকদ্বীপ থেকে সরাসরি বকখালি যেতে পারবেন । এই সুবিধা এতদিন ছিল না ।

Loading...